৭ দিনের মধ্যে তাসকিন-সানির বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা

88

যুগবার্তা ডেস্কঃ টি২০ বিশ্বকাপের বাছাই পর্বে স্বস্তির জয় পেয়েছে বাংলাদেশ দল। বুধবারের ম্যাচে তারা ৮ রানে হারিয়েছে নেদারল্যান্ডসকে। বর্তমানে বাংলাদেশ দল টি২০ ক্রিকেটে তাদের সেরা সময় অতিবাহিত করছে। বিশেষ করে টাইগারদের বোলিং আক্রমণের প্রশংসায় পঞ্চমুখ এখন ক্রিকেট বিশ্ব।
এমন সময়ে টাইগার ভক্তদের জন্য একটি দুঃসংবাদ দিয়েছে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। ডাচদের বিপক্ষে ম্যাচের পরই অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের দায়ে অভিযুক্ত হয়েছেন ডানহাতি পেসার তাসকিন আহমেদ ও বাঁহাতি স্পিনার আরাফাত সানি। নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচে বাংলাদেশের পেসার তাসকিন আহমেদ এবং স্পিনার আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছিলেন দুই ম্যাচ আম্পায়ার এস রবি এবং রড টাকার।
ইতিমধ্যেই আইসিসির কাছে অভিযোগটা পৌঁছে গেছে এবং আগামী সাত দিনের মধ্যেই বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হবে তাসকিন আহমেদ এবং আরাফাত সানিকে। ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি) অনুমোদিত কোনো পরীক্ষাগারে অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হবে বাংলাদেশের এই দুই বোলারকে। সেটা হতে পারে চেন্নাই বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োমেকানিক্যাল সেন্টারে।
নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ম্যাচের পর তাদের বিরুদ্ধে অবৈধ বোলিং অ্যাকশনের বিষয়ে লিখিত অভিযোগ জানান আম্পায়াররা। বৃহস্পতিবার এই বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে।
টি২০ বিশ্বকাপে বাছাইপর্বের প্রথম ম্যাচে ভারতের ধর্মশালায় নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে মাঠে নামে মাশরাফি বাহিনী। এদিন বাংলাদেশ দলের একাদশে ছিলেন তাসকিন ও আরাফাত সানি। প্রথমে আরাফাত সানির বোলিং অ্যাকশন নিয়ে সন্দেহের কথা জানান এক আম্পায়ার।
এরপর তাসকিনের নামও টানা হয়। যদিও বাংলাদেশের এই ডানহাতি তরুণ পেসারের বোলিং অ্যাকশন দেখে নাকি আম্পায়ারদের মনে হয়েছে তাসকিনের বোলিংয়ে কিছুটা সমস্যা আছে। তবে এই দুই বোলারের বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে আরো দুই একটি ম্যাচ দেখবেন তারা।
বৃহস্পতিবার এ প্রসঙ্গে হাথুরুসিংহে বলেন, ‘তাসকিন ও সানির বিষয়ে গতকাল (বুধবার) রাতেই অভিযোগ এসেছে। এ বিষয়ে আইসিসি আজকে সন্ধ্যার মধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিষয়টি নিশ্চিত করবে।’
আইসিসি তাসকিন ও সানির বোলিং সন্দেহের চোখে দেখলেও তারা আত্মবিশ্বাসী রয়েছে। এমনকি বাংলাদেশের এই দুই খেলোয়াড়ের মধ্যে কোনো ভয়ও কাজ করছে না।
এ বিষয়ে চন্ডিকা বলেন, ‘সন্দেহ যাই থাকুক না কেনো। তাসকিন ও সানির মাঝে কোনরকম ভয় কাজ করছে না। কারণ তাদের অ্যাকশনে ত্রুটিপূর্ণ কিছুই দেখছি না আমরা। আশা করছি সবকিছুই ঠিকঠাক মতো হবে।’
বোলিং অ্যাকশন সন্দেহজনক হলে আগামী ২৮ দিন পর্যন্ত বোলিংয়ে কোনোরকম বাঁধা থাকে না। নিয়ম অনুযায়ী সন্দেহ প্রকাশের ১৪ দিনের মধ্যে সংশ্লিষ্ট বোলারকে আইসিসি অনুমোদিত পরীক্ষাগারে অ্যাকশনের পরীক্ষা দিতে হয়। রিপোর্টে অ্যাকশনকে অবৈধ বলা হলে অ্যাকশন শোধরানো পর্যন্ত বল করতে পারেন না সংশ্লিষ্ট বোলার।