১০ হাজার গাছের চারা লাগাচ্ছে কিশোর পাঠাগার

রাজশাহী অফিসঃ এশিয়ার শহর গুলোর মধ্যে রাজশাহী বাতাসে মানুষের জন্য ক্ষতিকর উপাদান দ্রুত কমিয়ে আনছে। আর এ সফলতা এনে দিয়েছে সবুজায়ন। সম্প্রতি জাতিসংঘের বরাত দিয়ে যুক্তরাজ্যের প্রভাবশালী পত্রিকা দ্য গার্ডিয়ান এ তথ্য প্রকাশ করেছে।

এরই ধারাবাহিকতায় কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগার রাজশাহী মহানগরীতে ১০ হাজার গাছের চারা লাগানোর বড় কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। সেই লক্ষ্য সোমবার হাউজিং এস্টেট উচ্চ বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ২০০ ফলজ, বনজ ও ঔষধি গাছের চারা বিরতণের মধ্যে দিয়ে এ বৃহৎ কর্মসূচির উদ্বোধন করেছে।
সোমবার দুপুর ১২টায় এ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন, সামাজিক বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা ইমরান আহমেদ। এ সময় তিনি বলেন, এটি একটি মহৎ উদ্যোগ। রাজশাহী মহানগরী ইতোমধ্যেই দুষণরোধে সারা পৃথিবীতে শ্রেষ্ট হয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে বেশি করে গাছ লাগানোর জন্যই। রাজশাহীর এ সুনাম ধরে রাখতে হলে অবশ্যই বেশি করে গাছ লাগানো প্রয়োজন।

কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা সোহাগ আলী জানান, প্রাকৃতিক নানান প্রভাবের কারণে রাজশাহী মহানগরী পরিবেশগতভাবে ঝুঁকির মধ্যে আছে। আর এ থেকে উত্তোরণের সবচেয়ে ভালো উপায় হচ্ছে গাছ লাগানো। মহানগরীকে সবুজায়ন করার জন্যই এ উদ্যোগ।

তিনি আরো জানান, গাছ মানুষের প্রকৃত বন্ধু। একটি গাছ থেকে মানুষ প্রাণ বাঁচানো অক্সিজেন থেকে শুরু করে নানান ভাবে উপকার পেয়ে থাকে। সে কারণে বেশি করে গাছ লাগানোর কোনো বিকল্প নাই।
মহানগরীতে ১০ হাজার গাছের চারা রোপনের যে উদ্যোগ নেয়া হয়েছে তা কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগারের নিজস্ব উদ্যোগে। শুধু গাছ লাগালেই হবে না। তার যত্নেরও বিষয় আছে। সে বিষয়ে সবাইকে নজর রাখতে হবে।

এ সময় এস্টেট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাইদুল ইসলাম, ১৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, শহিদ আবুল কালাম আজাদ পাঠাগারের প্রতিষ্ঠাতা হাসিনুর রহমান, রহিম বক্স স্মৃতি পাঠাগারের সভাপতি জিয়াউর রহমান, কেন্দ্রীয় কিশোর পাঠাগারের কোষাধ্যক্ষ আব্দুল খালেক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।