হামলাকারীদের শেকড় খুঁজে বের করব: প্রধানমন্ত্রী

42

যুগবার্তা ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, যে সন্ত্রাসীরা ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিসান রেস্তোরাঁয় হামলা চালিয়ে হত্যাযজ্ঞ চালিয়েছে, তাদের ‘শেকড়’ খুঁজে বের করা হবে । সরকারপ্রধান রেস্তোরাঁয় সন্ত্রাসী হামলার এই ঘটনাকে ‘অনাকাঙ্ক্ষিত’ অভিহিত করে বলেন, “তাদের শেকড় খুঁজে বের করা হবে। কারা তাদের অস্ত্র-বিস্ফোরক দিচ্ছে তাও খুঁজে বের করা হবে।”
গণভবনে রোববার বাংলাদেশের অন্যতম উন্নয়ন সহযোগী দেশ জাপানের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সেইজি কিহারা কিহারার সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলে তার প্রেসসচিব ইহসানুল করিম জানান।
গত শুক্রবার রাতে গুলশান ২ নম্বরের হলি আর্টিজান বেকারিতে হামলা চালায় একদল অস্ত্রধারী জঙ্গি, জিম্মি হন দেশি বিদেশি অন্তত ৩৩ জন।
প্রায় ১২ ঘণ্টা পর কমান্ডো অভিযান চালিয়ে ওই রেস্তোরাঁর নিয়ন্ত্রণ নেয় সশস্ত্রবাহিনী। ১৩ জন জিম্মিকে জীবিত উদ্ধার করা হলেও ২০ জনের লাশ পাওয়া যায় জবাই করা অবস্থায়।
নিহতদের মধ্যে নয়জন ইতালির, সাতজন জাপানি ও একজন ভারতের নাগরিক। বাকি তিনজন বাংলাদেশি, যাদের মধ্যে একজনের যুক্তরাষ্ট্রেরও নাগরিকত্ব ছিল।
নিহত সাত জাপানির মধ্যে ছয়জন মেট্রোরেল প্রকল্পের সমীক্ষা কাজে নিয়োজিত ছিলেন। তাদের সঙ্গে ওই ক্যাফেতে ছিলেন আরও একজন, যাকে পরে উদ্ধার করা হয়।
এর আগে রাতে রেস্তোরাঁয় হামলার পরপরই সেখানে আটকেপড়াদের উদ্ধারে গিয়ে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ওসি সালাউদ্দীন হামলাকারীদের বোমার স্প্লিন্টারে নিহত হন।
ধর্ম যাজকসহ সাম্প্রতিক বিভিন্ন হত্যা-হামলার ঘটনা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বৈঠকে বলেন, যারা এসব হামলা করেছে, তাদের অনেককেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে, আগে ধর্ম যাজকরা তাদের লক্ষ্য ছিল।
জাপানের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের সময় ফ্রান্স, বেলজিয়াম, ভারত ও জাপানে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাও তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।
প্রেস সচিব বলেন, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী ও জাপানের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী- উভয়েই সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে লড়াই করার কথা বলেছেন।
সন্ত্রাসী হামলায় নিহত জাপানিদের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে হস্তান্তর করা হবে বলেও দেশটির পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রীকে জানান শেখ হাসিনা।
প্রেসসচিব বলেন, “সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের ঘটনায় জাপানের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। মৃতদেহগুলো পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।”
গুলশানে হামলার ঘটনায় ‘যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়ায়’ জাপানের প্রতিমন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন বলেও প্রেস সচিব জানান।
বাংলাদেশ ও জাপানের মধ্যে অর্থনৈতিক সহযোগিতার ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে বলেও দুই পক্ষই বৈঠকে আশা প্রকাশ করে।
প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ এবং ঢাকায় জাপানের রাষ্ট্রদূত এ বৈঠকের সময় উপস্থিত ছিলেন।