হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণার দাবি

46

যুগবার্তা ডেস্কঃ শনিবার সকালে রাজধানীর মুক্তিভবনে কৃষক সমিতি, ক্ষেতমজুর সমিতি, সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ একমাস অতিবাহিত হওয়ার পরও হাওর অঞ্চলকে দুর্গত এলাকা ঘোষণা না করায় ও পর্যাপ্ত ত্রাণ সহায়তা না দেওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। নেতৃবৃন্দ নতুন ফসল না ওঠা পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্থ সকল পরিবারকে চালসহ ৮টি নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের ত্রাণ সরবরাহ অব্যাহত রাখার দাবী জানান।
সাংবাদিক সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ হাওর এলাকার মানুষের সমস্যার স্থায়ী সমাধান ও অগ্রাধিকার ভিত্তিতে হাওর অঞ্চলে শস্যবীমা চালুরও দাবি জানান।
সাংবাদিক সম্মেলন থেকে হাওরবাসীকে বাঁচাতে আগামীকাল হাওর অঞ্চলের ৭টি জেলার ২৪টি উপজেলায় একযোগে বিক্ষোভ সমাবেশ ও ইউএনও’র মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশের কর্মসূচি এবং হাওর সমস্যার স্থায়ী সমাধানে করনীয় নির্ধারণে আগামী ২০ এপ্রিল জাতীয়ভাবে ঢাকায় হাওর কনভেনশন অনুষ্ঠানের ঘোষণা করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্টের সাধারণ সম্পাদক বজলুর রশিদ ফিরোজ। বক্তব্য রাখেন কৃষক সমিতির সহ-সভাপতি অ্যাড. এস এম এ সবুর, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাজ্জাদ জহির চন্দন, ক্ষেতমজুর সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. আনোয়ার হোসেন রেজা, কৃষক সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক জাহিদ হোসেন খান, সহ-সাধারণ সম্পাদক অর্ণব সরকার, সদস্য অনিরুদ্ধ দাশ অঞ্জন, চন্দন সিদ্ধান্ত, সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্টের দপ্তর সম্পাদক নিখিল দাস, সদস্য জুলফিকার আলী, বেলায়েত হোসেন।
সংবাদ সম্মেলনে নেতৃবৃন্দ হাওরের ইজারা বাতিল করে জনসাধারণের মাছ ধরার জন্য উন্মুক্ত ঘোষণা করা, গবাদিপশুর খাদ্য সরবরাহ এনজিও ঋণসহ সরকারি-বেসরকারি সকল ঋণ মওকুফ, সুদমুক্ত কৃষিঋণ প্রদান, সময়মত বাঁধ নির্মাণ না করা ও দুর্নীতি, গাফিলতির জন্য দায়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা ও ঠিকাদারদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান, হাওর অঞ্চলের নদী-খাল খনন ও স্থায়ী টেকসই বাঁধ (রাবার বাঁধ) নির্মাণের দাবি জানান।