হজ্জে কোন গাফিলতি বরদাশত করা হবে না-বিমান মন্ত্রী

83

যুগবার্তা ডেস্কঃ বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, স্বাচ্ছন্দে ও নির্বিঘ্নে হজ্জ পালনের ব্যবস্থা করতে সরকার সর্বাত্মক প্রয়াস গ্রহণ করেছে।কারো গাফিলতি, অনৈতিক কর্মকান্ড ও অসহযোগিতায় এ কার্যক্রম বিঘ্নিত হলে তা বরদাশত করা হবে না, এ জন্য সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, এখনও প্রায় পনের হাজার হজ্জযাত্রীর ভিসার জন্য পাসপোর্ট হজ্জ অফিসে জমা হয়নি, ১৬টি এজেন্সি এখনও একজন হজ্জ যাত্রীও পরিবহন করেনি। অন্যদিকে অভিযোগ এসেছে অনেক হজ্জ এজেন্সি হাজিদের বাড়ীভাড়া করেছে ২০ আগস্টের পর এটি সত্যি হলে ২০ আগস্টের পর যে চাপ তৈরি হবে তা সামাল দিতে প্রয়োজনীয় এয়ারক্রাফট পাওয়া যেমন দুস্কর হবে তেমনি অতিরিক্ত স্লটও পাওয়া যাবে না। তাই বিপর্যয় এড়াতে ভিসা হয়েছে এমন হজ্জযাত্রীদের সৌদি আরবে পাঠাতে হজ্জ এজেন্সিগুলোকে দায়িত্ব নিতে হবে।
তিনি আরও বলেন, হজ্জযাত্রীর অভাবে ইতোমধ্যে বিমানের ২২টি ফ্লাইট বাতিল হয়েছে।যা বিমানকে আর্থিক ক্ষতি ও ইমেজ সংকটের মুখোমুখি করেছে। এর দায় বিমানের ছিলনা। তবুও ন্যাশনাল ফ্ল্যাগ ক্যরিয়ার হিসেবে হজ্জযাত্রীদের পরিবহন নিশ্চিত করতে বিমান প্রচেষ্টা চালাচ্ছে এ জন্য হজ্জ ফ্লাইটের সময়সীমা ২৬ আগস্ট থেকে বাড়িয়ে ২৮ আগস্ট পর্যন্ত করতে ‌’জেনারেল অথরিটি অফ সিভিল এভিয়েশন, সৌদি আরবের’ প্রতি অনুরোধ পত্র প্রেরণ করা হবে।নতুন পাওয়া ১৪টি স্লটের অতিরিক্ত আরও ৭টি স্লট পরিচালনা করতে আগস্ট থেকে বিমানের আবুদাবির ০২টি, ব্যাংককের ০৩টি, দোহার ০৫টি, দুবাইর ০১টি কাঠমুন্ডুর ০২টি, কুয়ালারামপুরের ০১টি, লন্ডনের ০৩টি, মাস্কাটের ০১টি, রিয়াদের ০৩টি এবং দাম্মামের ০২টি ফ্লাইট বাতিল অথবা কমিয়ে আনা হবে। এবং মালেশিয়া থেকে লিজকৃত একটি এয়ারক্রাফট ২০ আগস্ট থেকে হজ পরিবহন করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
মন্ত্রী সোমবার সকালে কুর্মিটোলাস্থ বিমানের প্রধান কার্যালয়ে হজ্জ সংক্রান্ত জরুরী সভায় একথা বলেন, সভায় জানানো হয় এ বছর বাংলাদেশের জন্য নির্ধারিত ১লাখ ২৭ হজার ১৯৮ জনের ৬২ হাজার ৫৪৭ জন ইতোমধ্যে সৌদি গমণ করেছেন যার মধ্যে বিমান ২৯ হাজার ৩৭৩ জন এবং সৌদিয়া ৩৩ হাজার ১৩৫ জন হজ্জযাত্রী বহন করেছে।
সভায় বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের সচিব এসএম গোলাম ফারুক, বিমান বোর্ডের চেয়ারম্যান এযার মার্শাল (অব.) এনামুল বারী, বিমান ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব এএইচএম জিয়াউল হক, বিমানের এমডি মোসাদ্দেক আহমেদ হজ্জ ক্যাম্পের পরিচালক সাইফুল ইসলামসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।