স্বাধীনতার প্রথম শহীদ ফারুক ইকবালের প্রতি বেসামরিক বিমান ও পর্যটন মন্ত্রীর শ্রদ্ধা

117

যুগবার্তা ডেস্কঃ : বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন এমপি বলেছেন, ১৯৭১ সালের মার্চের প্রথম দিন ইয়াহিয়া খান একপেশে সিদ্ধান্ত নিয়ে ৩ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত ঘোষণা করলে পাকিস্তানের ভাঙন পর্ব নিশ্চিত হয়ে যায় যায়। সমগ্র পূর্ব বাংলায় প্রতিবাদ ও বিক্ষোভের বিষ্ফোরণ ঘটে। জনতা রাজপথে স্বাধীনতার দাবিতে ১ দফার আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়ে। যার ফলশ্রুতিতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ৭ মার্চ মুক্তি ও স্বাধীনতার ঐতিহাসিক ঘোষণা প্রদান করেন।
আমাদের তরুণদের স্বাধীনতার সঠিক ইতিহাস জানতে হবে। দেশপ্রেমের কঠিন পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হবে। দেশকে সত্যিকার অর্থে ভালোবাসতে হবে। দেশকে ভালোবাসলে শহীদ ফারুক ইকবালদের মতো গর্বে ফোলানো বুক বুলেট বিদ্ধ হয়। আর তাই যুগে যুগে ফারুক ইকবালরা প্রমাণ করে গেছেন প্রকৃত ভালোবাসা জীবনের চেয়ে মহৎ।
তিনি আজ সকালে সকালে স্বাধীনতার প্রথম শহীদ ফারুক ইকবালের ৪৫ তম শাহদৎ বার্ষিকীতে রাজধানীর মৌচাকে শহীদ ফারুক ইকবালের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে শহীদ ফারক ইকবাল বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে এ কথা বলেন।
মন্ত্রী আরও বলেন, শোষণ, বঞ্চনা ও বৈষম্যের অবসানে একটি অসাম্প্রদায়িক গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের স্বপ্নে ফারুক ইকবালরা জীবন উৎসর্গ করেছেন, সেই স্বপ্নের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় এ মহান বীরের নামে প্রতিস্ঠিত এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে নিরন্তর এগিয়ে যেতে হবে।
১৯৭১ অগ্নিঝরা মার্চের আজকের দিনে স্বাধীনতার দাবিতে সোচ্চার জনতার বিক্ষোভ মিছিলে পাকজান্তা গুলি চালালে ফারুক ইকবাল মৃত্যুবরণ করেন।