স্ত্রী মিতু হত্যায় এসপি বাবুলের জড়িত থাকার প্রমান আসেনি

47

যুগবার্তা ডেস্কঃ চট্টগ্রামের আলোচিত মাহমুদা খানম মিতু হত্যায় তার স্বামী এসপি বাবুল আক্তারের সম্পৃক্ত নেই বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।
মন্ত্রী বলছেন, এসপি বাবুল আক্তারকে স্ত্রী হত্যায় জড়িত থাকার বিষয়ে কোনো জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়নি। তিনি নজরদারির মধ্যেও নাই।
মঙ্গলবার রাজধানীর ওসমানী মিলনায়তনে মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদফতরের এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।
স্বরাষ্টমন্ত্রী বলেন,সিসিটিভির ফুটেজ দেখে দু’জন আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। তাদের চিহ্নিত করতেই এসপি বাবুল আক্তারকে নেয়া হয়েছিল।
মিতু হত্যা মামলার তদন্ত চলমান রয়েছে, তদন্ত শেষে এ মামলার বিস্তারিত জানা যাবে বলে মন্তব্য করেন মন্ত্রী।
উল্লেখ্য, গত ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর ও আর নিজাম রোডের বাসার অদূরে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার পথে খুন হন মাহমুদা খানম মিতু। মোটরসাইকেলে আসা তিন হামলাকারী মিতুকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে পালিয়ে যায়।
ঘটনার পর থেকে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছিল, গত কয়েক বছরে চাকরিকালীন সময়ে চট্টগ্রামে জঙ্গি দমন অভিযানে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছিলেন মিতুর স্বামী এসপি বাবুল আক্তার। আর এ কারণে জঙ্গিদেরই টার্গেটে ছিলেন তিনি ও তার পরিবারের সদস্যরা।
তবে ঘটনার দু’দিন আগে বদলিজনিত কারণে ঢাকায় আসেন এসপি বাবুল আক্তার। ঘটনার দিন ৫ জুন তার নতুন কর্মস্থলে যোগ দেয়ার কথা ছিল। আর এ দিনই ঘটে যায় মর্মান্তিক এ ঘটনা।
স্ত্রী খুন হওয়ার পর থেকে দুই শিশু ছেলে-মেয়েকে নিয়ে ঢাকায় শ্বশুর বাড়িতে থাকছিলেন এসপি বাবুল আক্তার। তার শ্বশুর মোশাররফ হোসেন পুলিশের ওসি হিসেবে অবসরে যান। বাবা আবদুল ওয়াদদু মিয়াও পুলিশে চাকরি করেছেন।
গত শনিবার সকালে শ্বশুর মোশাররফ হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘গতকাল শুক্রবার রাত ১টার দিকে তাদের বনশ্রীর বাসা থেকে বাবুল আক্তারকে নিয়ে যান খিলগাঁও থানার ওসি মঈনুল হোসেন ও মতিঝিল বিভাগের উপকমিশনার আনোয়ার হোসেন।’
তিনি বলেন, ‘আইজি সাহেব দেখা করতে বলেছেন বলে বাবুলকে ওরা নিয়ে গেল। এরপর তার সঙ্গে আর যোগাযোগ করতে পারছি না। যারা নিয়ে গেল তাদের সঙ্গেও যোগাযোগ করা যাচ্ছে না।’
রাতে নিয়ে যাওয়ার প্রায় ১৫ ঘণ্টা পর শনিবার বিকাল ৪টা ৩০ মিনিটে এসপি বাবুলকে বাসায় পৌঁছে দেয় পুলিশ।
এরপর থেকে ওই বাসার আশেপাশে পুলিশের কড়া নজরদারি চলছে। গত চার দিনেও এসপি বাবুল বাসা থেকে বের হননি। কারও সঙ্গে তিনি খুব একটা কথাও বলছেন না।
এর মধ্যে মিতু হত্যা ও বাবুলকে নিয়ে পরষ্পরবিরোধী নানা গুঞ্জনও ছড়িয়ে পড়ছে। যা নিয়ে পুলিশের পক্ষ থেকেও পরিষ্কার কোনও বক্তব্য পাওয়া যাচ্ছে না।