সৌদি জোটে যাওয়া সংবিধানের পরিপন্থী: বাদশা

66

যুগবার্তা ডেস্কঃ ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারন সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেছেন, সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন ৩৪টি দেশের জোটে বাংলাদেশের যোগ দেওয়ার বিষয়টি সংবিধানের ২৫ ধারার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়। শনিবার চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে এক অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।
বাংলাদেশ গত মঙ্গলবার আনুষ্ঠানিকভাবে সৌদি আরবের সন্ত্রাসবিরোধী উদ্যোগে যুক্ত হওয়ার কথা জানায়। বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বলছে, প্রাথমিকভাবে সন্ত্রাস ও উগ্রবাদের বিরুদ্ধে সমন্বিত পদক্ষেপ নেওয়ার জন্য রিয়াদে একটি কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হবে। তাতে বাংলাদেশ যোগ দিয়েছে। তবে সৌদি আরবের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ৩৪টি মুসলিম দেশ নিয়ে একটি সামরিক জোট করছে রিয়াদ। সুন্নি মতাদর্শের মুসলিম দেশগুলোকে নিয়ে এ জোট করায় শুরু থেকেই এর ভবিষ্যৎ নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, গতকাল দুপুরে নাচোলে ইলা মিত্র পাঠাগারে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর মানুষদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা এমপি বলেন, ‘আইএসের বিরুদ্ধে সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন জোটে অংশ নিয়ে বৈদেশিক মন্ত্রণালয় (পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়) এক আজব পদক্ষেপ নিয়েছে।’ তিনি বলেন, তিনি সংসদে প্রতিবাদ জানাবেন। এটা ভুল পদক্ষেপ। এই থেকে বিরত হওয়া উচিত।
মতবিনিময় সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস, সংসদ সদস্য কাজী রোজী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের অধ্যাপক মেসবাহ কামাল, উপজেলা চেয়ারম্যান আবদুল কাদের প্রমুখ।
ফজলে হোসেন বাদশা আরও বলেন, সংবিধানে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নীতি বজায় রাখার কথা বলা হয়েছে। যুদ্ধের উদ্দেশ্যে বা অন্য কোনো দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের নীতি আমাদের নেই। সংবিধানে সাম্রাজ্যবাদী তৎপরতার বিরুদ্ধেও সুস্পষ্ট অবস্থান আছে। হঠাৎ করে এই সিদ্ধান্ত জাতীয় ঐতিহ্য ও আঞ্চলিক বৈদেশিক নীতির সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়। তিনি বলেন, বাংলাদেশ আরব বিশ্বের দেশ নয়। আরবের রাজনীতির সঙ্গেও যুক্ত ছিল না। বাংলাদেশ এর আগে আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক বিষয়াদি নিয়ে ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছে। সরাসরি যুদ্ধ জোটে যোগ দেয়নি। এ ছাড়া জোটে যেসব দেশ রয়েছে তাদের অনেকের বিরুদ্ধে আইএস (ইসলামিক স্টেট) লালনের অভিযোগ আছে। তারা শিয়া-সুন্নি বিভাজনে ভূমিকা রেখেছে। ইসরায়েল-ফিলিস্তিন যুদ্ধের ক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা স্পষ্ট ছিল না। এ অবস্থায় জোটে যোগ দেওয়া মানে আরব বিশ্বের ভুল রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়া।