সুন্দরবন রক্ষায় ‘প্রতীকী গণভোট’

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধিঃ সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার উদ্যোগে আজ মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুন্দরবন রক্ষায় প্রতীকী গণভোটের আয়োজনের কথা ঘোষণা করা হয়। দীর্ঘদিন ধরে চলমান সুন্দরবন রক্ষার আন্দোলনকে আরও বেগবান করতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এই প্রতীকি গণভোটের আয়োজন করা হবে।
সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্য পাঠ করে শোনান সাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ সম্পাদক সালমান সিদ্দিকী। উপস্থিত ছিলেন সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সভাপতি ইভা মজুমদার ও সহ-সভাপতি সুস্মিতা রায় সুপ্তি। সংবাদ সম্মেলনের বক্তব্যে তারা বলেন,“আমরা মনে করি, সুন্দরবনের উপর অধিকার বাংলাদেশের সকল সাধারণ মানুষের। সরকার সুন্দরবনকে কেন্দ্র করে এত বড় একটা সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে অথচ এ ব্যাপারে বিজ্ঞানী-গবেষক-বিশেষজ্ঞদের কোন মতামতের তোয়াক্কাই করছে না। এই গণভোটের মাধ্যমে আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক-কর্মচারীসহ প্রত্যেকের কাছে যাব। তাদের ভোট ব্যালটের মাধ্যমে সংগ্রহ করব। ভোট গণনার মাধ্যমে আমরা বুঝতে পারব যে জনগণের রায় কী। আগামী ৩০ অক্টোবর থেকে সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্টের নেতা-কর্মীরা ক্লাসে, হলের রুমে রুমে যাবে এবং ভোট সংগ্রহ করবে। শেষে ১৭ নভেম্বর ২০১৬, বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলায় ছাত্র সমাবেশে গণভোটের রায় ঘোষণা করা হবে। রায় ঘোষণা করবেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব আনু মুহাম্মদ। উপস্থিত থাকবেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড.সামিনা লুৎফা, আর্ন্তজাতিক সম্পর্ক বিভাগের ড.মোহাম্মদ তানজীমউদ্দিন খান ও একাউন্টিং অ্যা- ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোসাহিদা সুলতানা’সহ অন্যান্য শিক্ষকবৃন্দ।”
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদ ও ইনস্টিটিউটে যে সব তারিখে গণভোট অনুষ্ঠিত হবে
আগামী ৩০ ও ৩১ অক্টোবর কলাভবন ১, ২ ও ৬ নভেম্বর কার্জন হল ৯ ও ১০ নভেম্বর ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ ৮ ও ১৩ নভেম্বর সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ১০ নভেম্বর চারুকলা অনুষদ ১৩ নভেম্বর সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং ১৪ নভেম্বর শিক্ষা ও গবেষণা ইনস্টিটিউট ।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তারা বলেন,“এই রায়ের মাধ্যমে আমরা তুলে নিয়ে আসতে চাই যে, দেশের শিক্ষিত মহল রামপাল নিয়ে কী মনে করেন। প্রধানমন্ত্রীর ভাষ্য মতে, আন্দোলনকারীদের শক্তি অণু-পরমাণুতে বিভক্ত। সরকার থেকে উপেক্ষিত জনগণের মতামতকে আমরা প্রত্যক্ষ প্রমাণসহ তুলে ধরতে চাই। তাই আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সকলকে গণভোটে অংশগ্রহণ করার এবং ১৭ নভেম্বর সমাবেশকে সফল করার আহ্বান জানান।”