সমতাভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার জন্য প্রয়োজন নারী-পুরুষের সম্মিলিত সংগ্রাম-ওয়ার্কার্স পার্টি

67

যুগবার্তা ডেস্কঃ পুঁজিবাদী সমাজে নারীরা দ্বৈত শোষণ নির্যাতনের শিকার। নারীদেরকে দ্বৈত শোষণ-নির্যাতন থেকে মুক্তি পেতে হলে পুঁজিবাদী সমাজকে বদল করে সমতাভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। এই সমতা ভিত্তিক সমাজ প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে প্রয়োজন নারী পুরুষের সম্মিলিত সংগ্রাম। সেই সংগ্রামের আহ্বান জানাই। নারী মুক্তিই পারে মানব মুক্তির পথ প্রশস্ত করতে।
আজ আন্তর্জাতিক নারী দিবস উদযাপন উপলক্ষে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকা মহানগর কমিটি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন এ আহ্বান জানান। ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি কমরেড আবুল হোসাইনের সভাপতিত্বে শহীদ রাসেল মঞ্চে আয়োজিত আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য রাখেন নারী নেত্রী কমরেড হাজেরা সুলতানা এমপি, ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এ্যাড. জোবায়দা পারভীন, ওয়ার্কার্স পার্টির মহানগর সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, গণতন্ত্রী পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য কানন আরা, ন্যাপ নেত্রী নাসিমা হক রুবী, ওয়ার্কার্স পার্টির মহানগর নেত্রী মুর্শিদা আক্তার ডেইজী, মদিনা খানম, শাহানা ফেরদৌসী লাকী, মুর্শিদা আখতার, শিউলী শিকদার প্রমুখ।
প্রধান অথিতির ভাষণে কমরেড রাশেদ খান মেনন বলেন, পুঁজিবাদ, সাম্রাজ্যবাদ, নারীকে পণ্যে পরিণত করেছে। পুঁজিবাদী সমাজে মানবিকতা বলতে কিছু নেই। আছে শুধু মুনাফা অর্জন। নারীর ক্ষমতায়ন ও শোষণ-নির্যাতনের হাত থেকে মুক্তি পেতে হলে নারীকে অধিকতর সচেতন ও সংগঠিত হতে হবে। সংগঠিত নারীই পারে অধিকার অর্জন করতে। তিনি নারীদেরকে সচেতন ও সংগঠিত হওয়ার আহ্বান জানান। একই সাথে আন্তর্জাতিক নারী দিবসে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল নারীদের প্রতি সংগ্রামী অভিবাদন জানান।