সংসদকে কটাক্ষ করে প্রধান বিচারপতি জনগণকেই কটাক্ষ করেছেন–মেনন

49

গাজীপুর সংবাদদাতাঃ ‘সংসদকে কটাক্ষ করার অর্থ জনগণকেই কটাক্ষ করা। জনগণ রাষ্ট্রের মালিক। আর তাদের সেই মালিকানাকে কার্যকর করে সংসদের মাধ্যমে। সেই সংসদকে অপরিপক্ক অকার্যকর বলার অর্থ জনগণের বিচার বুদ্ধি সম্পর্কে প্রশ্ন তোলা। প্রধান বিচারপতি ষোড়শ সংশোধনী রায়ে তার পর্যবেক্ষণে অপ্রাসঙ্গিকভাবে সংসদকে টেনে সেই জনগণকেই অসম্মান করেছেন। প্রধান বিচারপতি যদি তার ঐ মন্তব্য স্বত্বপ্রনোদিত প্রত্যাহার করে নেন সেটা ভালো। নইলে সংসদকেই তার সম্মান রক্ষায় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’শনিবার গাজীপুরে বঙ্গতাজ মিলনায়তনে জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির কর্মী সমাবেশে পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন একথা বলেন।
গাজীপুর জেলা ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি আব্দুল মজিদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই সমাবেশে মেনন বলেন, ‘আইনসভা, বিচারবিভাগ ও নির্বাহী বিভাগ রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভ। কেউ কাউকে অসম্মান করে বা ছোট করে নিজের সম্মান রক্ষা করা যাবে না। তাই বিচারবিভাগের সম্মান অক্ষুন্ন রাখতেই সংসদের সম্মান রাখতে হবে।’ মেনন ষোড়শ সংশোধনী রায় নিয়ে বিতর্কে বাংলাদেশের জনগণকে পাকিস্তানের জনগণের সাথে তুলনা করায় প্রধান বিচারপতির তীব্র সমালোচনা করেন। মেনন বলেন বাংলাদেশের জনগণের দীর্ঘ গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ঐতিহ্য রয়েছে যা পাকিস্তান সম্পর্কে কল্পনাও করা যায় না। বাংলাদেশের জনগণ ও পাকিস্তানের জনগণ এক নয়। বাংলাদেশের জনগণ যে কোন অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করে, করতেই থাকবে। ষোড়শ সংশোধনী রায়ের ক্ষেত্রে তাই হয়েছে। এনিয়ে প্রধান বিচারপতির আশ্চর্য্য হওয়ার কিছু নাই। বিরূপ মন্তব্য করার কোন অবকাশ নাই।
মেনন আরও বলেন, ষোড়শ সংশোধনীর রায় বিএনপির হাতে ষড়যন্ত্রের অস্ত্র তুলে দিয়েছে। তারা এটা ব্যবহার করে এখন সরকার ও বিচারব্যবস্থা সম্পর্কে নানাবিধ বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। কিন্তু এই ষড়যন্ত্র সফল হবে না। জনগণ আন্দোলনের ধারায় বর্তমান সরকারের উন্নয়নের ধারাকে এগিয়ে নেবে।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন পার্টির কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।