‘সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন, ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্র পরিচালনার ফল’

46

যুগবার্তা ডেস্কঃ আদিবাসী আর সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতনের প্রতিকারে সরকার একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন ১৪ দলের মুখপাত্র স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।
রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়নে ধর্মীয় সংখ্যা লঘুদের বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের জাতীয় সম্মেলনে কথা বলেন তিনি।
মোহাম্মদ নাসিম বলেন, সংখ্যালঘুদের উপর হামলাকারীদের কখনও ছাড় দেয় না আওয়ামী লীগ। তবে সব সময় প্রশাসনের একার পক্ষে সব ঘটনা সামাল দেয়া সম্ভব হয় না।
মানবাধিকার কর্মী সুলতানা কামাল বলেন, আদিবাসী আর সংখ্যালঘুদের উপর হামলা ও নির্যাতন রাজনৈতিক দলগুলোর ধর্ম ভিক্তিক রাষ্ট্র পরিচালনার ফল। আমরা স্পষ্ট করে বলেছি বাংলাদেশ হবে এমন একটা দেশ, যেখানে প্রতিটি নাগরিক যে কোন পরিচয়ে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মাথা উচুঁ করে বাঁচবে।
এপ্রসঙ্গে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মাহবুবুর রহমান বলেন, প্রত্যেক নাগরিকের সমঅধিকারের বিষয়টি নিশ্চিত করা আছে। এখন শুধু সময় সে অধিকার বাস্তবায়নের।
বিমান ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন বলেন, আমি মনে করি আমরা ২০০৮ এর নির্বাচনের পর এক অস্থিরতার রাজনীতি থেকে এক গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে ফিরে এসেছি।
জনসংহতি সমিতির সভাপতি সন্তু লারমা বলেন, এই আলোচনায় যারা অংশ নিয়েছেন আমি মনে করি সবাই এক মত হবেন। শুধু সমালোচনা দিয়ে কি এই দাবি বাস্তবায়ন সম্ভব। আমি মনে করি সেটা অসম্ভব। আমি আরো মনে করি যে জাতীয় সংলাপে আমাদের বিশেষ কিছু দেয়া হয় নাই। এতে করণীয়টা কি হতে পারে। এখানে আমি পঙ্কজ দার আলোচনা প্রেক্ষিতে কিছু কথা বলি। পঙ্কজ স্মরণ বলেছেন এই দাবি পরিপূরণে জাতীয় পর্যায়ে আন্দোলন এগিয়ে নিতে হবে।
এই জাতীয় পর্যায়ের আন্দোলন কারা করবে। আমরা যারা সংখ্যা লঘু ও আদিবাসী তাদের পক্ষে কি জাতীয় পর্র্যায়ে আন্দোলন করার ক্ষমতা আছে। আজকে যারা ভুক্তভোগী তাদেরই এই আন্দোলন করতে হবে।সালমা পারভীন , আমাদের সময়.কম