শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি হাফিজুর ঢামেকের আইসিইউতে

যুগবার্তা ডেস্ক: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর সদস্য ও জাতীয় শ্রমিক ফেডারেশনের সভাপতি হাফিজুর রহমান ভূইয়াকে দিল্লীর বিএলকে হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়েছে। তিনি‘কৃত্রিম শ্বাসযন্ত্র’ সংযোগে ডা. অপূর্ণ দেবনাথের অধিনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

হাফিজুর রহমান লিভার ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গত ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে দিল্লীর বিএলকে হাসপাতালে ভর্তি হন। সেখানে বিশিষ্ট শৈল্য চিকিৎসক ডা: সঞ্জয় নিডির তত্ত¡াবধানে তাঁর লিভার অপারেশন হয়। তিনি সুস্থ্য হয়ে দেশে ফেরেন। গত ২৮ ডিসেম্বর তিনি ‘ফলোআপ’ চিকিৎসার জন্য পুণরায় ঐ হাসপাতালে ভর্তি হন। ১১ জানুয়ারি তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটে এবং তাকে হাসপাতালের আইসিসিইউতে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তার শারিরিক অবস্থার তেমন কোন উন্নতি না হওয়ায় গতকাল একটি এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে দুপুর ১২টায় ঢাকায় আনা হয়। ঢাকা শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে তাঁকে গ্রহণ করেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী কমরেড রাশেদ খান মেনন। তিনি একটি বিশেষায়িত এ্যাম্বুলেন্স যোগে তাঁকে বিমানবন্দর থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপতালে নিয়ে যান।

এসময় তার সাথে পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড সুশান্ত দাস, কমরেড মাহমুদুল হাসান মানিক, কমরেড কামরূল আহসান, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড এনামুল হক এমরান, কমরেড তপন দত্ত, কমরেড আনোয়ারুল হক বাবলু, কমরেড আমিরুল হক আমিন, কমরেড জাকির হোসেন রাজু, কমরেড মোস্তফা আলমগীর রতন, কমরেড সাব্বাহ আলী খান কলিন্স, ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, কমরেড তৌহিদুল আলম, কমরেড জাহাঙ্গীর আলম ফজলু, কমরেড মুতাসীম বিল্লাহ সানী প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

আজ সকালে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মিজানুর রহমান কমরেড হাফিজুর রহমানের সর্বশেষ স্বাস্থ্যগত পরিস্থিতির খোঁজ খবর নেন এবং তাঁর জন্য মেডিকেল বোর্ড গঠনের নির্দেশ দেন। বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ কমরেড হাফিজুর রহমান ষাটের দশকে খুলনার বিএল কলেজে ছাত্র ইউনিয়নে যোগ দেন।

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমকম পাশ করার পর পার্টির নির্দেশে তিনি শ্রমিক আন্দোলনে যোগ দেন। ১৯৬৬ সালে তিনি খুলনার খালিশপুরে প্লাটিনাম জুবিলি জুটমিলের শ্রমিক ইউনিয়ন গঠন করেন।

১৯৬৯ সালে খুলনার অগ্নিগর্ভ শ্রমিক আন্দোলন থেকে শুরু করে দীর্ঘকাল তিনি জুট শ্রমিক সহ শ্রমিক আন্দোলনের সামনের কাতারে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি খুলনার ফুলতলা আসনে ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থী হিসেবে সংসদ নির্বাচনে অংশ নেন।