শ্রদ্ধা শেষে প্রবীণ সাংবাদিক সাদেক খানের দাফন সম্পন্ন

71

যুগবার্তা ডেস্কঃ প্রবীণ সাংবাদিক ও কলামনিস্ট সাদেক খানের প্রতি শ্রদ্ধা শেষে আজ রাজধানীর বনানী কবরস্থানে তার পিতা মরহুম সাবেকক স্পীকার আঃ জব্বার খানের কবরে দাফন করা হয়েছে।
সোমবার সকালে বাড়িধারা নিজ বাসবভনে গোসল করার সময় ইন্তেকাল করেন।মৃতুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৫ বছর।আজ মঙ্গলবার সকাল ১০ টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে আনা হয়। এখানে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হওয়ার পরে সাংবাদিকসহ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।তারপর বেলা দেড়টায় গুলশান আজাদ মসজিদে দ্বিতীয় জানাজা শেষে বনানীস্থ কবরেস্থানে দাফন করা হয়।
তিনি ১৯৩৩ সালের ২১ জুন মুন্সীগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। ওই সময় তার বাবা সাবেক পাকিস্তান ন্যাশনাল এসেম্বলির স্পিকার মরহুম আবদুল জব্বার খানের কর্মস্থল ছিল মুন্সীগঞ্জ।
সাদেক খানের গ্রামের বাড়ি বরিশালের বাবুগঞ্জ উপজেলায়। গ্রামের নাম বাহের ক্ষুদ্রকাঠি। তিনি ভাই-বোনদের মধ্যে সবার বড়। তার অন্যান্য ভাইবোন হলেন সাবেক মন্ত্রী ও রাষ্ট্রদূত কবি মরহুম আবু জাফর ওবায়দুল্লাহ খান, প্রখ্যাত সাংবাদিক মরহুম এনায়েতুল্লাহ খান, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, বর্তমান বেসরকারি বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাজনীতিক রাশেদ খান মেনন এমপি ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শহিদুল্লাহ খান বাদল।
১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের সাংগঠনিক নেতৃত্বের ভূমিকায় লিপ্ত হয়ে কেন্দ্রীয় সংগ্রাম কমিটির সভা থেকে গ্রেফতার হন এবং একমাস কারাভোগ করেন সাদেক খান। ১৯৫৫ থেকে ৫৭ সাল পর্যন্ত তিনি দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় সহ-সম্পাদক পদে কাজ করেন। এরপর তিনি চলচ্চিত্র জগতে ব্যস্ত সময় অতিবাহিত করেন। সাহিত্য এবং সংস্কৃতিতে বিশেষ অবদানের জন্য তিনি একুশে পদকে ভূষিত হয়েছেন।
তিনি কলাম লেখার চর্চা অব্যাহত রেখে হলিডে ও অন্যান্য পত্রিকায় নিয়মিত প্রবন্ধ লিখছেন। এছাড়াও রেডিও, টেলিভিশন ও সেমিনারে জাতীয় সমস্যাদি, জাতীয় সম্পদ, নিরাপত্তা সাংবাদিকতা এবং সাংস্কৃতিক বিষয়াদিতে মৌলিক বক্তব্য রেখেছেন।