শীতকালীন সবজি ভরপুর, তবুও দাম আকাশ ছোঁয়া

81

যুগবার্তা ডেস্কঃ রাজধানীতে শীত কালীন শাকসবজি ভরপুর তারপরও দাম এখনও আকাশ ছোঁয়া। শীতের আগে কাঁচা বাজার নিন্মমুখী হওয়ার কথা থাকলেও তার কোন আলামত দেখা যাচ্ছে না। ফলে হিমশিম খাচ্ছে ক্রেতারা।
ক্রোতাদের অভিযোগ অসুাধ ব্যবসায়ীরা দাম কমাচ্ছে না। সবজিসহ পেঁয়াজ, রসুন, আদা, মশলা প্রায় সব নিত্যপণ্যেরই দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। কেবল কাঁচা মরিচের দাম কিছুটা কমেছে। তাও দেড়শ টাকা কেজি সবজির দাম এখনও আকাশ ছোঁয়া, যা অনেক ক্ষেত্রেই সাধারণ ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার বাইরে। ব্যবসায়ীরা বলছেন, আগামি ১৫ দিনের মধ্যে বাজারে শীতের সবজি বাজার ভরে যাবে তখন সবজির দাম কমতে শুরু করবে। তবে সবজির দাম বাড়তি থাকলো মুরগির দাম সাধারণ মানুষের নাগালে। প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১১০ থেকে ১২০ টাকার মধ্যে। শুক্রবার রাজধানীর কয়েকটি কাঁচা বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আলু, বেগুন, টমেটো, ফুলকপি, বাঁধাকপি, ঢেড়শ, করলা, বরবটি, কুমড়া, চিচিঙ্গাসহ কোন সবজিই্ দাম কমেনি। কাঁচাবাজারগুলোতে পর্যাপ্ত সরবরাহ থাকা সত্ত্বেও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে বেশিরভাগ সবজি। ।
রাজধানীর ফার্মগেট বাজারে ক্রেতা খালেদা বেগম বলেন, মনে করেছিলাম ঈদের পরে সবজির দাম কমবে। অথচ এখনো কমেনি। অসুাধ ব্যবসায়ীদের কারণে সবজি বাজার এখনো সাধারণ মানুষের নাগালে।তাদের কাছে আমরা জিম্মি হয়ে আছি।
বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি আলু বিক্রি হচ্ছে ২৫ – ৩০ টাকায়। ফুলকপি ৪০-৫০ টাকায়। কাঁচা পেঁপে ৩৫ টাকায়। শিম ৮০ টাকা, বরবটি ৮০-১০০ টাকা, ঢেঁড়শ ৯০-১০০ টাকা, কচুরলতি ৬০-৭০ টাকা, বেগুন ৬০-৮০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০-৫০ টাকা, শালগম ৬০-৭০ টাকা, করলা ৬০-৭০ টাকা, টমেটো ১০০-১১০ টাকা, গাজর ১০০ টাকা, মূলা ৩০-৪০ টাকা, শশা ৫০-৬০ টাকা, মিষ্টি কুমড়া ৪০ টাকা, প্রতি আঁটি লাউ শাক ৩০ টাকা, লাল শাক ও সবুজ শাক ২০ টাকা, পালং শাক ৩০ টাকা, পুঁই শাক ২৫ টাকা ও ডাটা শাক ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ব্রোকলি প্রতিটি ৫০-৬০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ধনেপাতা ২০০ টাকা কেজি। গর“র মাংস কেজি প্রতি ৪০০-৪২০ টাকা বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া খাসি ৫৫০-৬০০ টাকা, প্রতি কেজি র“ই আকৃতিভেদে ২০০-৪০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৬০-২৫০, সিলভার কার্প ১০০-১৫০ টাকা, আইড় ৪০০-৫০০ টাকা, পাবদা ৫০০-৬০০ টাকা, বোয়াল ৩৫০-৫০০ টাকা, শিং ৫০০-৭০০, দেশি মাগুর ৬৫০-৭০০ টাকা, শোল মাছ ৪০০-৬০০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৫০০-১১০০ টাকা, পুঁটি ১৮০-২০০ টাকা, পোয়া ৪০০-৪৫০ টাকা, মলা ২২০-৩০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৪০-১৬০ টাকা, চাষের কৈ ১৫০-২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এদিকে চালের বাজার অনেকটাই স্থিতিশীল রয়েছে। সুগন্ধি চালের মধ্যে কাটারি ভোগ ৯০ টাকা, প্যাকেট একশ’ ৫ টাকা। কাল জিরা প্যাকেট পাওয়া যাচ্ছে প্রতি কেজি ১০০-১২০ টাকা এবং খোলা ৯৫ থেকে ১১০ টাকা। প্রতি কেজি মোটা চালের দাম ৪০-৪৫ টাকা। আর মিনিকেট ৫০-৫৫ টাকা।আমাদের সময়.কম