‘শহীদের সংখ্যা নিয়ে খালেদা জিয়ার বক্তব্য পাকিস্তানীদের অপকর্মকে আড়াল করার উদ্দেশ্যেই’

47

যুৃগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি কমরেড রাশেদ খান মেনন এবং সাধারণ সম্পাদক কমরেড ফজলে হোসেন বাদশা আজ এক বিবৃতিতে মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা নিয়ে বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বক্তব্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন।
বিবৃতিতে নেতৃদ্বয় বলেছেন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং তাদের এদেশীয় দোসর রাজাকার, আলবদর, আল শামস, শান্তি কমিটির হায়েনারা ত্রিশ লক্ষ বাঙালিকে হত্যা করেছে একথা আজ শুধু অনুমানই নয়, মীমাংসিত সত্য। এই জঘন্য গণহত্যাসহ নারী ধর্ষণ, লুটপাট ও অন্যান্য মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধের বিচার এই মুহূর্তে বাংলাদেশ এগিয়ে নিয়ে চলেছে। এই বিচারের বিরোধিতা করে পাকিস্তান সরকার নিজেদের সে সময়কার অপকর্মকে অস্বীকার করার মতো ধৃষ্টতাও দেখিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর চিহ্নিত ১৯৫ জন যুদ্ধাপরাধী সেনা সদস্যের বিচারের দাবিও এই মুহূর্তে বাংলাদেশে জোরালো হচ্ছে। ঠিক সেই মুহূর্তে পাকিস্তানী সরকার এবং যুদ্ধাপরাধী জামাতে ইসলামের বক্তব্যের প্রতিধ্বনি শোনা গেল বেগম খালেদা জিয়ার কণ্ঠে। পাকিস্তানী সেনাবাহিনী এবং এদেশীয় যুদ্ধাপরাধীদের অপকর্ম হালকা করে দেখানোর হীন রাষ্ট্রবিরোধী উদ্দেশ্যেই বেগম খালেদা জিয়া এ বক্তব্য দিয়েছেন। এর মধ্য দিয়ে প্রকারান্তরে তিনি যুদ্ধাপরাধীদের প্রত্যক্ষ সমর্থন জানালেন।
বিবৃতিতে ওয়ার্কার্স পার্টির নেতৃদ্বয় যুদ্ধাপরাধীদের পক্ষ নেওয়া এবং তাদের রাজনৈতিক আশ্রয়দানের অপরাধে বেগম খালেদা জিয়াকে বিচারের মুখোমুখি করার আহ্বান জানান।