লুটপাট করতেই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি : এনপিপি

স্টাফ রিপোটার: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকার শুধুমাত্র জনগণের টাকা লুট করতেই জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ২০ দলীয় জোট শরিক ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ ও মহাসচিব মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা।

আজ শনিবার (০৬ আগস্ট) গণমাধ্যমে প্রেরিত এক যৌথ বিবৃতিতে তারা এ মন্তব্য করেন তারা।

জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির নিন্দা জানিয়ে এনপিপি নেতৃদ্বয় বলেন, দফায় দফায় নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের জীবন যখন অতিষ্ঠ, ঠিক সেই মুহূর্তে নতুন করে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। অথচ বিশ্ব বাজারে জ্বালানির দাম কমেছে। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পেট্রোল ও অকটেন আমাদের আমদানি করতে হয় না । তারপরও কেন জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলো? মূলত জনগণের টাকা লুট করতেই তারা জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়েছে। এর মাধ্যমে সরকার আবারও প্রমাণ করলো, তারা জনগণের সরকার নয়। দুর্নীতি ও লুটপাট করাই তাদের মূল লক্ষ্য।

তারা অবিলম্বে জনস্বার্থে জ্বালানি তেলের দাম কমানোর দাবি জানান।

বিবৃতিতে এনপিপি নেতৃদ্বয় আরও বলেন, এমনিতেই নিত্যপণ্য ঊর্ধ্বমূল্যে কিনতে হচ্ছে। এ অবস্থায় ডিজেল-কেরোসিন-পেট্রোল-অকটেনের মূল্যবৃদ্ধি জনজীবনকে মারাত্মক চাপে ফেলবে। ফের বাড়বে পরিবহন ভাড়া এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম, বাড়বে মূল্যস্ফীতি। ফলে নিম্ন ও মধ্যবিত্তের জীবন চরম সঙ্কটে পড়বে। তাই সরকারের এমন সিদ্ধান্ত ‘মড়ার ওপর অনেকটা খাঁড়ার ঘা’র মতো।

তারা বলেন, সরকারের দুঃশাসনে মানুষ আজ অতিষ্ঠ। তাই এই সরকারকে অচিরেই বিদায় করতে না পারলে দেশের মানুষকে রক্ষা করা যাবে না। বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে গণআন্দোলনে এদেরকে বিদায় করতে হবে। সঙ্কট উত্তোরণে এর কোনো বিকল্প নেই।