লাইভ রিপোর্টিংয়ের সময় যৌন হয়রানির শিকার সংবাদিক

76

যুগবার্তা ডেস্কঃ এবার জার্মানির কোলন শহরে যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটেছে। আর এবারে এই যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন একজন নারী সাংবাদিক। শহরটিতে শুরু হওয়া বার্ষিক স্ট্রিট কার্নিভাল শুরু হলে তার সংবাদ প্রচার করতে গিয়ে তিনি এই হয়রানির শিকার হয়েছেন। এসময় তিনি টিভিতে লাইভ রিপোর্টিং করছিলেন। এ খবর জানিয়েছে সিএনএন।
এ বছরের শুরুতেই জার্মানির কোলন শহর আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে আসে বর্ষবরণের উৎসবে নারীদের যৌন হয়রানির ঘটনায়। শতাধিক নারী ওইদিন যৌন হয়রানির শিকার হন। এর মধ্যে কয়েকটি ধর্ষণের অভিযোগও রয়েছে। এরপর থেকেই শহরটিতে নারীদের যৌন হয়রানির ঘটনা রোধে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে
তবে এর মধ্যেই বৃহস্পতিবার ঘটে গেল এমনই আরেক ঘটনা। শহরটিতে ওইদিন শুরু হয় বার্ষিক স্ট্রিট কার্নিভাল নামের এক উৎসব। একে নারীদের উৎসব হিসেবেই অভিহিত করা হয়। বেলজিয়ামে সিএনএনের সহযোগী টিভি চ্যানেল আরটিবিএফের হয়ে এই উৎসবের খবর রিপোর্টিংয়ের দায়িত্বে ছিলেন এসমেরালদা লেবি। টিভিতে লাইভ রিপোর্টিং করছিলেন তিনি। এমন সময় কেউ একজন তার উদ্দেশ্যে কুৎসিত অঙ্গভঙ্গি করতে থাকে।
লেবি জানান, একজন এসে আচমকা তার ঘাড়ে চুমু দিয়ে বসে। অন্য আরেকজন কানে কানে তাকে বাজে প্রস্তাবও দেয়। শেষ পর্যন্ত তার শরীরে হাতও দিয়ে বসে একজন। এরপর আর মেজাজ ধরে রাখতে পারেননি তিনি। টিভির লাইভ রিপোর্টিং চালিয়ে যেতে যেতেই তিনি তখন পিছনে ঘুরে তিন জনকে দেখতে পান। তাদের উদ্দেশ্যে চিৎকার করে তিনি ইংরেজিতে বলেন, ‘এটা আর দ্বিতীয়বার হতে দিব না। আমাকে স্পর্শ করবে না। আমাকে স্পর্শ করবে না।’ শহরজুড়ে প্রচুর পুলিশ মোতায়েন থাকায় এমন জনবহুল একটি স্থানে পরিস্থিতি এমন একটি পর্যায়ে পৌঁছে যাবে, তা ভাবেননি লেবি। আরটিবিএফ এই ঘটনার ভিডিও দ্বিতীয়বার প্রচার করবে না বলে জানিয়েছে।
তাদের এক বার্তায় বলা হয়, ‘আমরা আমাদের সহকর্মী সাংবাদিকের প্রতি শ্রদ্ধা ও সমর্থন জানাই। একইসঙ্গে আক্রমণকারীদের প্রতি জানাই নিন্দা ও উষ্মা।’ টিভি চ্যানেলটির পক্ষ থেকে পুলিশের কাছে বিষয়টি নিয়ে অভিযোগও করা হয়েছে। আরটিবিএফ জানিয়েছে, এই ঘটনায় শহরটির মেয়রের কার্যালয় থেকে ক্ষমাপ্রার্থণা করা হয়েছে এবং লেবির প্রতি সমর্থন জানানো হয়েছে। প্রয়োজনে লেবির জন্য পুলিশি নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানিয়েছে কোলন মেয়রের কার্যালয়।
এদিকে এসমেরালদা লেবি জানিয়েছেন, তাকে হয়রানির ঘটনায় সংশ্লিষ্টরা ইউরোপিয়ান। তিনি বলেন, ‘আমার কাছে এটা গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়েছে বলে আমি জোর দিয়ে বলতে চাই, ঘটনাটি যারা ঘটিয়েছে তারা জার্মান ভাষায় কথা বলছিল।’