রোহিঙ্গা গণহত্যা প্রতিরোধে ভারত-চীনকে এগিয়ে আসার আহ্বান

57

যুগবার্তা ডেস্কঃ লবার্মার রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের উপর যে নিপীড়ন-নির্যাতন-বিতাড়ন আর গণহত্যা অব্যাহত রেখেছে, তা এই মানবতাবিরোধী অপরাধ বন্ধ বা প্রতিহত করার জন্যে বিশ্বনেতাদের মাঝে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত-চীনকে সবার আগে আন্তরিকতার সহিত এগিয়ে আসার আহ্বান জানান বাংলাদেশ অনলাইন অ্যাক্টিভিষ্ট ফোরাম (বোয়াফ)।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘বার্মার রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় রোহিঙ্গা গণহত্যা বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ও অং সান সুচি’র কুশপুত্তলিকা দাহ’ এক কর্মসূচীর মাধ্যমে এ-আহ্বান জানান সংগঠনের সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময়।

কবীর চৌধুরী তন্ময় বলেন, ১৯৬২ সালে সামরিকজান্তা নে উইন ক্ষমতা দখলের পর রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের উপর যে হত্যা-নিপীড়ন-নির্যাতন আর বিতাড়ন শুরু হয়েছিল; তা তথাকথিত গণতান্ত্রিক আবরণ দেওয়া বার্মার সরকার বন্ধ না করে বরং গণহত্যা করে যাচ্ছে। তৃতীয় বিশ্বের আধুনিক সভ্যতায় মিয়ানমারের সরকার মানুষ-মানবতাকে ধ্বংসের ষড়যন্ত্র করছে; যা বিশ্ব নেতৃবৃন্দকে ঐক্যবদ্ধভাবে চাপ সৃষ্টি করে বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় সামরিক শক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে মানুষ-মানবতাকে সমুন্নত রাখার উদ্যোগ গ্রহণ করা উচিত।

শান্তিতে নোবেল জয়ী মানবতাবিরোধী অপরাধী ও অশান্তি সৃষ্টিকারী অং সান সুচি নীরব থাকলেও বিশ্বের মানুষ নীরব থাকবে না। তাই রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের উপর মিয়ানমার সরকারের হত্যা-নিপীড়ন-নির্যাতন আর বিতারনের বিষয়বস্তু বিশ্ব নেতৃবৃন্দের কাছে তুলে ধরার পাশাপাশি বাংলাদেশে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ বন্ধের যৌক্তিকতা নিয়ে জাতিসংঘের দৃষ্টি আকর্ষণ করা বাংলাদেশ সরকারের একান্ত দায়িত্ব-কর্তব্য বলেও মতামত দেন বক্তারা।

সংগঠনের সভাপতি কবীর চৌধুরী তন্ময়-এর সভাপতিত্বে এসময় অন্যান্যদের মাঝে সংহতি প্রকাশ করেন জয় বাংলা মঞ্চের সভাপতি মুফতি মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের চেয়ারম্যান আশরাফ আলী হাওলাদার, লোকশক্তি পার্টির চেয়ারম্যান সাহীকুল আলম টিটু, বোয়াফ সাংগঠনিক সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম জুয়েল, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রাকিব প্রমুখ।

.