রেডিমেড দর্জি শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে বিক্ষোভ সমাবেশ

56

যুগবার্তা ডেস্কঃ শনিবার সকালে বাংলাদেশ শ্রমিক কর্মচারী ফেডারেশনের ঢাকা নগর শাখা উদ্যোগে সদরঘাটস্থ ইষ্ট বেঙ্গল ও লেডিস মার্কেটের রেডিমেড দর্জি শ্রমিকদের মজুরি বৃদ্ধির দাবিতে এক বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের নগর সংগঠক ফখরুদ্দিন কবির আতিক এবং পরিচালনা করেন দর্জি শ্রমিকনেতা আবির মাহমুদ। মিছিলটি লঞ্চ টার্মিনালের পাশের সাইকেল মাঠ থেকে শুরু হয়ে কোতোয়ালী থানা হয়ে পাটুয়াটুলি দিয়ে বাংলাবাজার এলাকা প্রদক্ষিণ করে মার্কেটের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিল পরবর্তী সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক কমরেড উজ্জল রায়, নগর সংগঠক রাজীব চক্রবর্তী, শ্রমিক প্রতিনিধি ইউনুস আহেমেদ, অনোায়ার হোসেন, আরিফ হোসেন, মো: আফজাল, আবুল কালাম বেপারী, মো: ইদ্রিস প্রমুখ।
বক্তারা বলেন, সদরঘাট এলাকার রেডিমেড দর্জি শ্রমিকরা মজুরি হার বৃদ্ধি, মাসিক পাওনা পরিশোধ, উৎসব বোনাস, নিয়োগপত্রসহ অন্যান্য দাবিতে গত কয়েকমাস ধরে আন্দোলন করে আসছে। এর অংশ হিসেবে গত ৭ ফেব্রুয়ারি সদরঘাট থেকে পদযাত্রা করে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়, যার সংবাদ বিভিন্ন জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। সর্বশেষ গত ৬ মার্চ সদরঘাট এলাকায় মিছিল-সমাবেশ করে লেডিস মার্কেট দোকান মালিক সমিতি বরাবরে স্মারকলিপি পেশ করা হয়। সমিতির সভাপতি সাহেব মজুরি হার বৃদ্ধির বিষয়ে মার্কেটস্থ রেডিমেড পোশাক কারখানার মালিক ও ব্যবসায়ীদের সাথে আলোচনা করবেন বলে জানান এবং মালিক-শ্রমিক আলোচনার জন্য শ্রমিক প্রতিনিধিদের নাম জমা দিতে বলেন। সে অনুসারে নাম জমা দেয়া হয় এবং প্রতিনিধিরা বেশ কয়েকবার সমিতি অফিসে গিয়ে আলোচনা ও খোঁজ-খবর করেন। আমাদের সংগঠনের পক্ষ থেকে গত ২১ মার্চ পুনরায় চিঠি দিয়ে শ্রমিকদের দাবির বিষয়ে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। সভাপতি সাহেব ইতিমধ্যে মালিকদের সাথে আলোচনা করেছেন বলে আমাদের জানিয়েছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত মজুরি বৃদ্ধির কোন উদ্যোগ মালিকপক্ষ নিচ্ছে না, বারবার সময় নিয়ে কালক্ষেপণ করা হচ্ছে। অথচ গত ১৫ বছর ধরে মজুরির রেট বাড়েনি, যা নিয়ে শ্রমিকদের মধ্যে অসন্তোষ ও ক্ষোভ বিরাজ করছে। শ্রমিকদের দাবি, প্লেন ফুল শার্ট সেলাই মজুরি ৩০ টাকা ও হাফ শার্টে ২৫ টাকা দিতে হবে।
বক্তারা আরো বলেন, আর এক সপ্তাহ পরে আসছে মহান মে দিবস। ১৮৮৬ সালে শ্রমিকরা রক্ত দিয়ে প্রতিষ্ঠিত করেছিল শ্রমিকের অধিকার। কিন্তু ১৩০ বছর পরও শ্রমিকদের ন্যূনতম বেঁচে থাকার মত মজুরির জন্য আন্দোলন করতে হচ্ছে। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন জারি রাখতে হবে। সমাবেশ থেকে ঘোষণা করা হয়, আগামী ৫ মে-র মধ্যে মজুরি বৃদ্ধির উদ্যোগ নেয়া না হলে শ্রমিকরা কঠোর কর্মসূচীতে যেতে বাধ্য হবে। আগামী ২৭ এপ্রিল বুধবার সকাল ১১টায় জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদানের ঘোষণা দেন নেতৃবৃন্দ।