রাজশাহীতে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগ

রাজশাহী অফিসঃ রাজশাহীর বাঘায় পঞ্চম শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে (১১) ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ অভিযোগে সোমবার দুপুরে ওই স্কুলছাত্রীর বাবা এক নারীসহ দুইজনকে আসামি করে বাঘা থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন। এর আগে রোববার দুপুরে ওই ছাত্রী ধর্ষণের শিকার হয় বলে মামলার এজাহারে দাবি করা হয়েছে।

মামলার এজাহারের বরাত দিয়ে বাঘা থানার ওসি (তদন্ত) ধীরেন্দ্রনাথ প্রামানিক জানান, নির্যাতনের শিকার ওই স্কুলছাত্রীর বাড়ি উপজেলার তেপুখুরিয়া গ্রামে। সে স্থানীয় প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়াশোনা করে। রোববার দুপুরে স্কুলের টিফিনের সময় সে তার বান্ধবী সোনালী খাতুনকে সঙ্গে নিয়ে স্কুলের পাশের একটি দোকানে বিস্কুট কিনতে যায়।

এ সময় জুয়েল রানা (২২) নামে এক যুবক ওই স্কুলছাত্রীকে স্কুলের পাশেই জনৈক আকবর আলীর বাড়িতে ডেকে নিয়ে যায়। এরপর আকবর আলীর স্ত্রী মনিকা বেগমের সহযোগীতায় জুয়েল ওই স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে। পরে বাড়িতে গিয়ে ওই স্কুলছাত্রী তার মা’কে বিষয়টি জানায়। এরপর থানায় এ মামলা করা হয়। অভিযুক্ত জুয়েল তেপুখুরিয়া গ্রামেরই বেল্লাল হোসেনের ছেলে। মামলায় জুয়েল ও মনিকা বেগমকে আসামি করা হয়েছে।

ওসি জানান, অভিযোগ পেয়েই তিনি ওই স্কুলছাত্রীর বাসায় গিয়ে তার সঙ্গে কথা বলেছেন। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে পাঠানো হবে। আর অভিযুক্তদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

ওই স্কুলছাত্রীর বাবা জানান, জুয়েল মাঝে মধ্যেই তার মেয়েকে উত্যক্ত করতো। কিন্তু লোকলজ্জার ভয়ে তিনি কাউকে কিছু বলেননি। এখন তিনি তার বিচার দাবি করেন।
জানতে চাইলে তেপুখুরিয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মহিদুল ইসলাম বলেন, ‘ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে বলে শুনেছি। তবে কতোটা সত্য তা বলতে পারবো না। বিষয়টি সম্পর্কে আমরাও খোঁজখবর নিচ্ছি।’