যুদ্ধাপরাধী মোনায়েম খানের সব প্লট বাতিল

যুগবার্তা ডেস্কঃ বাংলাদেশের স্বাধীনতার বিরোধিতাকারী মোনায়েম খানের ঢাকার বনানীর বাড়িটির বরাদ্দ বাতিল হয়েছে বলে জানিয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন।
একাত্তরে মুক্তিবাহিনীর হামলায় নিহত মোনায়েম খানের উত্তরাধিকাররা ওই বাড়ি সংলগ্ন সরকারি ১০ কাঠা জমি দখল করে রেখেছিলেন।
গত ৩ নভেম্বর ওই অবৈধ দখল উচ্ছেদের সময় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল চিহ্নিত এই স্বাধীনতাবিরোধীর বাড়ির বরাদ্দ বাতিলে সরকারকে আহ্বান জানিয়েছিলেন।
এই বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী মোশাররফ বুধবার বলেন, ওইটা ক্যানসেল হয়ে গেছে। আমি বলে দিয়েছি, যে স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে, তার প্লট বাতিল হবে।
‘সেটা গণপূর্তের প্লটই হোক, রাজউকেরই হোক। সেটা বাতিল। আপনারা সেইটা ক্যানসেল করে দেন, আমরা মন্ত্রণালয় থেকে ক্যানসেল করে দেব।’
কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরের মোনায়েম খান ছিলেন পাকিস্তান আমলে মুসলিম লীগের বড় নেতা। ১৯৬২ সালে পূর্ব পাকিস্তানের গভর্নরের দায়িত্ব পেয়ে বাংলার মানুষের স্বাধিকার আন্দোলন দমনে আইয়ুব খানের হাতিয়ার ছিলেন তিনি।
বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধিতায় নামা মোনায়েম খান ১৯৭১ সালের ১৩ অক্টোবর বনানীর এই বাড়ি বাগ-এই মোনায়েম- এ মুক্তিবাহিনীর গুলিতে আহত হন। এরপর হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়।
সম্প্রতি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর জঙ্গিদমন অভিযানে কল্যাণপুরে নিহত যুবকদের মধ্েয মোনায়েম খানের এক নাতি আকিফুজ্জামান খানও ছিলেন।
বনানীর ২৭ নম্বর সড়কের ১১০ নম্বর প্লটের ওই বাড়িটি আয়তনে পাঁচ বিঘা। পাকিস্তান সরকারের গভর্নর থাকার সময় ওই প্লটটি বরাদ্দ দেওয়া হয় মোনায়েম খানের নামে।
রাজউক কর্মকর্তারা বলেন, বনানীর এ-ব্লকের ১১০ নম্বরের পাঁচ বিঘা ১৫ ছটাক প্লটটি তৎকালীন ডিআইটি হতে ১৯৬৬ সালে মোনায়েম খানের নামে বরাদ্দ দেওয়া হয়। ১৯৬৭ সালে লিজ দলিল সম্পাদন ও রেজিস্ট্রি করা হয়।
কয়েক বছর আগেও তার মেয়ে ওই বাড়িতে একটি স্কুল চালাচ্ছিলেন।-আমাদের সময়.কম