যুদ্ধাপরাধীদের বংশধরদের বাংলাদেশে রাজনীতি ও সকল প্রকার নির্বাচনে অবাঞ্ছিত-অযোগ্য ঘোষণা করুন—- যুব মৈত্রী

98

বাংলাদেশ যুব মৈত্রী কেন্দ্রীয় কমিটির সভা শুক্রবার সকাল ১১টায় সংগঠনের সভাপতি মোস্তফা আলমগীর রতনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ বলেন, দেশ এক গভীর সংকটের মধ্য দিয়ে চলছে। দেশকে অস্থিতিশীল করতে বিএনপি-জামাত তৎপর রয়েছে। দেশের মধ্যে সাম্প্রদায়িক গ্রুপগুলো সক্রিয়। তারা মসজিদে হামলা, বিদেশী হত্যা, ওলামা মাশায়েখ হত্যা, বিশিষ্টজনকে হত্যার পরিকল্পনা, মুক্তমনা ব্লগার হত্যা করে বিএনপি-জামাত তৎপর ও সক্রিয় রয়েছে। নাশকতাকারীরা বিএনপি-জামাত দ্বারা মদদপুষ্ট। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, দেশে ক্রিয়াশীল জঙ্গিবাদী সংগঠনগুলোর মধ্যে শিবিরের কর্মীরা জড়িত। যা প্রমাণ করে জামাতের সক্রিয় অংশগ্রহণে নাশকতাকারীরা নাশকতা করছে। এর পেছনে রয়েছে বিএনপির মদদ। যুদ্ধাপরাধের বিচার যখন চলছে, রায় কার্যকর হচ্ছে তখন পাকিস্তান বলছে বাংলাদেশে পাকিস্তানি ভাব আদর্শের মানুষ হত্যা করা হচ্ছে যাহা অত্যন্ত আপত্তিকর। যুব মৈত্রীর কেন্দ্রীয় কমিটি ঘৃনাভরে প্রতিবাদ জানায় পাকিস্তানে আমাদের দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো। যুদ্ধাপরাধীর দল জামাত-শিবিরের রাজনীতি নিষিদ্ধসহ যুদ্ধাপরাধীদের বংশধরদের বাংলাদেশে রাজনীতি ও সকল প্রকার নির্বাচনে অবাঞ্চিত-অযোগ্য ঘোষণার দাবি তোলেন। চাকুরি নিয়োগে ব্যাপক ঘুষ-দুর্নীতিতে বেকার যুবরা অতিষ্ঠ। চাকুরির নিয়োগে ঘুষ-দুর্নীতি প্রতিরোধে যুব মৈত্রীকে যুব সমাজকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। বিশ^ব্যাংকের নীলনক্সা অনুযায়ী সরকারি সিদ্ধান্ত অনুসারে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রথায় আউট সোসিং বন্ধের কার্যকর উদ্যোগ নিতে সরকারকে আহ্বান জানান। নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, বিশ^ব্যাপী আইএসএর হামলা আক্রমণ প্রতিহত করতে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক জোরদার করতে হবে। অসাম্প্রদায়িক-গণতান্ত্রিক রাজনীতি এগিয়ে নিতে সাম্প্রদায়িক জঙ্গিবাদী শক্তিকে পরাস্ত করতে যুব মৈত্রীকে কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যন্ত সংগঠন বিস্তার ও শক্তি সঞ্চয় করতে সকলকে যতœশীল ও সজাগ থাকতে এবং সক্রিয় থাকতে হবে। কেন্দ্রীয় কমিটির সভায় বক্তব্য রাখেন সাব্বাহ আলী খান কলিন্স, টিপু সুলতান এমপি, শহীদ হাসান সিদ্দিকী স্বপন, জাহাঙ্গীর আলম ফজলু, সাইফুল ইসলাম তপন, রফিকুল ইসলাম সুজন, ফারাহীন বালী, মুক্তার হোসেন নাহিদ, শফিকুল ইসলাম মুকুল, বিদ্যুৎ চৌধুরী প্রমুখ।