মোংলায় সমাবেশে মা ইলিশ রক্ষায় ৪শ জেলের শপথ গ্রহণ

মোংলা থেকে মোঃ নূর আলমঃ ৪শ জেলে মা ইলিশ রক্ষায় শপথ গ্রহণ করেছেন । ১২ অক্টোবর বুধবার সকালে পশুর নদীর পাড়ে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের পানির জেটিতে উপজেলা প্রশাসন ও মৎস্য দপ্তরের আয়োজনে মা ইলিশ সংরক্ষণ অভিযান উপলক্ষ্যে সমাবেশে জেলেরা এ শপথ গ্রহণ করেন।
সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ভারপ্রাপ্ত উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ আবু সুফিয়ান। সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন খুলনার অতিরিক্তি বিভাগীয় কমিশনার মোঃ ফারুক হোসেন। সমাবেশে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাগেরহাট-৩ এর সাবেক এমপি বেগম হাবিবুন নাহার, খুলনা মৎস্য অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক রনজিৎ কুমার পাল, মোংলা উপজেলা চেয়ারম্যান আবু তাহের হ্ওালাদার ও বাগেরহাট জেলা মৎস্য অফিসার আব্দুল ওয়াদুদ। এছাড়া বক্তব্য রাখেন মোংলা থানা অফিসার ইনচার্জ শেখ লুৎফর রহমান, ইউপি চেয়ারম্যান নিখিল চন্দ্র রায়, মোল্লা মোঃ তারিকুল ইসলাম, গাজী আকবর হোসেন, মোঃ ইস্রাফিল হোসেন হ্ওালাদার, উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা ফেরদৌস হোসেন, সহকারি মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ লিয়াকত হোসেন, মোংলা উপজেলা জেলে সমবায় সমিতির সভাপতি বিদ্যুৎ কুমার মন্ডল প্রমূখ। সমাবেশে বলা হয় বাগেরহাট জেলায় নিবন্ধিত জেলে আছে ৪০ হাজার। তার মধ্যে জাটকা ধরা থেকে বিরত থাকার জন্য ভিজিএফ সহায়তা পান মাত্র ৫ হাজার ৭শ ৩৯ জন জেলে। মোংলা উপজেলায় নিবন্ধিত জেলে আছে ৬ হাজার ৭শ জন। মোংলায় ভিজিএফ সহায়তা পান ৩শ ৯৮ জন জেলে। সমাবেশে মোংলা জেলে সমবায় সমিতির সভাপতি বিদ্যুৎ কুমার মন্ডল বলেন মা ইলিশ রকক্ষায় জেলেরা শপথ গ্রহণ করেছে কিন্তু এসময় আমরা কোন ভিজিএফ সহায়তা তারা পাই না। তাই আমাদের দাবী ইলিশের প্রজনন সময়ও জাটকা ধরার মতো ভিজিএফ সহায়তা প্রধান করা হোক। খুলনার অতিরিক্তি বিভাগীয় মোঃ ফারুক হোসেন প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলেদের দাবী বাস্তবায়নের আশ্বাস প্রদান কওে বলেন ১২ অক্টোবর হতে ২ নভেম্বর ২২ দিন ইলিশের ডিম ছাড়ার প্রধান প্রজনন মৌসুম ঘোষণা করা হয়েছে এসময় ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরন, বিক্রয় ও মজুদ নিষিদ্ধ। তাই আইন অমান্য করে এসময় ইলিশ আহরণ, পরিবহন, বাজারজাতকরন, বিক্রয় এবং মজুদ করলে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।