মোংলায় কবি রুদ্রের ৬০তম জন্ম বার্ষিকী পালন

মোংলা থেকে মোঃ নূর আলমঃ তারুণ্য ও সংগ্রামের দীপ্ত প্রতীক কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ’র ৬০তম জন্ম বার্ষিকী উপলক্ষ্যে রবিবার দিনব্যাপী মোংলায় নানা কর্মসুচি পালন করা হয়। কর্মসুচির মধ্যে ছিলো রুদ্র স্মৃতি সংসদ’র আয়োজনে বিভিন্ন সংগঠন এবং প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে কবির গ্রামের বাড়ি মোংলার মিঠেখালিতে সকালে শোভাযাত্রা সহকারে সমাধিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মিলাদ মাহফিল,আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং বিকেলে প্রীতি ফুটবল ম্যাচ। রোববার মিঠেখালিতে রুদ্র সংসদ আয়োজিত স্মরণ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন মোঃ নাজমুল হক। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ নূর আলম শেখ। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আবুল হোসেন, আসাদুজ্জামান টিটো, উকিল উদ্দিন ইজারদার, আমিরুল ইসলাম, আফজাল হোসেন, ্ওবায়দুল ইসলাম, মিজানুর রহমান প্রমূখ।
কবির জন্মদিন স্মরণে ঢাকা রুদ্র সংসদ জাতীয় যাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে স্মরণ সভার আয়োজন করে। স্মরণসভা শেষে রুদ্রের কবিতা আবৃত্তি ও রুদ্রের গান পরিবেশিত হয়।
অকাল প্রয়াত এই কবি তার কাব্যযাত্রায় যুগপৎ ধারণ করেছেন দ্রোহ ও প্রেম, স্বপ্ন ও সংগ্রামের শিল্পভাষ্য। সাহস ও স্বপ্নে, শিল্প ও সংগ্রামে আপদমস্তক সমর্পিত এই কবি তার স্বল্পায়ু জীবনকে ছড়িয়ে দিয়েছিলেন তারুণ্যের দীপ্র সড়কে। নিজেকে মিলিয়ে নিয়েছিলেন আপামর নির্যাতিত মানুষের আতœার সঙ্গে; হয়ে উঠেছিলেন তাদেরই কন্ঠস্বর। ‘জাতির পতাকা আজ খামচে ধরেছে সেই পুরোনো শকুন’Ñ এই নির্মম সত্য অবলোকনের পাশাপাশি ততোধিক স্পর্ধায় তিনি উ”চারণ করেছেনÑ ‘ভুল মানুষের কাছে নতজানু নই’। যাবতীয় অসাম্য, শোষণ ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে অনমনীয় অব¯’ান তাঁকে পরিণত করেছে ‘তারুণ্যের দীপ্ত প্রতীক’-এ। একই সঙ্গে তাঁর কাব্যের আরেক প্রান্তর জুড়ে রয়েছে স্বপ্ন, প্রেম ও সুন্দরের মগ্নতা।
বাংলাদেশের কবিতায় অবিসস্মরণীয় এই কবির শিল্পমগ্ন উ”চারণ তাকে দিয়েছে সত্তরের অন্যতম কবি-স্বীকৃতি। ১৯৫৬ সালের ১৬ অক্টোবর আজকের দিনে কবি রুদ্র মুহম্মদ শহিদুল্লাহ জন্মগ্রহণ করেছিলেন। মাত্র ৩৪ বছরের (১৯৫৬-১৯৯১) স্বল্পায়ু জীবনে তিনি সাতটি কাব্যগ্রš’ ছাড়াও গল্প, কাব্যনাট্য এবং ‘ভালো আছি ভালো থেকো’ সহ অর্ধ শতাধিক গান রচনা ও সুরারোপ করেছেন।