মৃত্যুদিন থেকে কতটা দূরে, জানাবে এই ঘড়ি

55

যুগবার্তা ডেস্কঃ সব সময়ে মৃত্যুভয় মানুষকে তাড়া তরে বেড়ায়।কবে মৃতু্ ঘন্টা বাজবে জানতে চায়। সকলেরই কৌতূহল রয়েছে নিজেদের আয়ু নিয়ে। প্রতিদিনই কিন্তু একটু একটু করে মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যাওয়া। আর সেই ভাবনা থেকেই তৈরি হয়েছে এই ঘড়ি।
ঠিক কবে, আর কতদিন পরে এই পৃথিবীর মায়া কাটিয়ে চলে যেতে হবে সেই প্রশ্ন সকলের মনেই উঁকি দিয়ে যায়। প্রতি সেকেন্ডে একটু একটু করে কমে যাচ্ছে আয়ু। অর্থাৎ চান বা চান কাউন্টডাউন একটা চলছেই। একটি অদৃশ্য ঘড়ি টিক টিক করে চলেছে।
যদি সেই অদৃশ্য ঘড়ি হঠাৎ দৃশ্যমান হয়ে ওঠে? তবে দেখতে পাবেন প্রতিদিন চোখের সামনে, কেমন করে কমে গেল একটা দিন। এমনই একটি ঘড়ি তৈরি করেছে লস এঞ্জেলসের একটি কোম্পানি ‘সেইজ দ্য ডে টেকনোলজি’।
এই বিশেষ ঘড়িটিতে মানুষের গড় আয়ু ধরা আছে ২৮০০০ দিন অর্থাৎ ৭৬ বছর ২৬০ দিন। যদি কারও জন্মের দিন থেকে চালু করে দেওয়া হয় ঘড়ি তবে টানা ৭৬ বছর ২৬০ দিন চলবে এই বিশেষ ডিজিটাল ক্লক। তার পর বন্ধ হবে সেই ঘড়ি। স্বাভাবিক মৃত্যুর কথা মাথায় রেখেই বানানো হয়েছে এই ঘড়ি।
ঘড়িটি হাতে নিয়ে প্রথমে নিজের জন্মতারিখ ও সালটি সেট করে দিতে হয়, তার পরেই ঘড়ির স্ক্রিনে ফুটে ওঠে একটি সংখ্যা— ২৮০০০ দিন থেকে আর কতদিন রয়েছে আয়ু। সেই শুরু হয় কাউন্টডাউন। এই ঘড়ি কাছে থাকলে, প্রতিদিন সকালে উঠে জানতে পারবেন জীবনে আর ক’টাদিন পড়ে রইল।
এখন প্রশ্ন হল, এমন অদ্ভুতুড়ে ঘড়ি বানানোর কারণটা কী? কোম্পানির বক্তব্য, এমন একটি কাউন্টডাউন চোখের সামনে চলতে থাকলে মানুষ নিজের জীবন নিয়ে আরও একটু সিরিয়াস হবেন এবং প্রতিদিন জীবনকে প্রাণভরে উপভোগ করার চেষ্টা করবেন। শুধু তাই নয়, সময় যে কতটা দামি সেই কথাটাও বার বার মানুষকে মনে করিয়ে দেবে এই ঘড়ি।
ঘড়িটি এখনও বাজারে আসেনি তবে ইচ্ছে করলে প্রিঅর্ডার করা যাবে কোম্পানির সাইট থেকে। জানা গিয়েছে এই বছর ডিসেম্বর থেকেই আন্তর্জাতিক বাজারে চলে আসবে এই বিশেষ ঘড়ি।