মুশফিকের কীর্তি গড়া একদিন

টেস্ট ক্রিকেট আরেকটি স্বর্ণালী দিন কাটালো বাংলাদেশ। শেষ চার টেস্টে অস্বস্তির বলিরেখা ফুটিয়ে তোলা ব্যাটসম্যানরাই এবার আনন্দঘন সময়ের রচয়িতা। রানের হাহাকার মাড়িয়ে আসল রানের ঝংকার। ব্যাটিংয়ে নেতৃত্বের ব্যাটনটা দিনভর বয়ে বেড়ালেন মুশফিকুর রহিম। বাংলাদেশে দলে ফার্স্ট ক্লাস (ইতিহাস বিভাগ) পাওয়া একমাত্র ছাত্র গড়লেন ইতিহাস। ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় ডাবল সেঞ্চুরিতে রেকর্ড বইয়ের অলি-গলিতে আলোড়ন তুললেন তিনি।

গতকালকেরটি নিয়ে বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে দুটি ডাবল সেঞ্চুরি করলেন মুশফিক। অপরাজিত ২১৯ রানের ইনিংসে সাকিব আল হাসানকে (২১৭) টপকে হয়েছেন টেস্টে দেশের পক্ষে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ইনিংসের মালিক। শুধু রান নয়, বল খেলা, উইকেটে টিকে থাকার দিক থেকেও দেশের হয়ে শীর্ষে এখন মুশফিক। ৫৮৯ মিনিটে ৪২১ বল মোকাবিলা করে খেলেছেন অনন্য এক ইনিংস।

দেশের গণ্ডি পেরিয়ে বিশ্ব রেকর্ডও গড়েছেন। টেস্টের ১৪১ বছরের ইতিহাসে প্রথম কিপার-ব্যাটসম্যান হিসেবে দুটি ডাবল সেঞ্চুরি এখন এই বাংলাদেশির। জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে এটাই কোনো কিপার-ব্যাটসম্যানের ডাবল সেঞ্চুরি। এত অর্জনের দিনেও আট রানের জন্য টেস্টে মিরপুরের ব্যক্তিগত সেরা ইনিংসের ধারক হতে পারেননি বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান খ্যাত মুশফিক। এই মাঠে সর্বোচ্চ ২২৬ রানের ইনিংস পাকিস্তানের আজহার আলীর। বাংলাদেশের টিম ম্যানেজমেন্টের জানা থাকলে হয়তো এই রেকর্ডটাও গতকাল দিন শেষে শোভা পেতে পারতো ৩১ বছর বয়সী এই ক্রিকেটারের পাশে।

মুশফিকের রান-রেকর্ডে উদ্ভাসিত বাংলাদেশ গতকাল মিরপুরে গড়েছে রানের পাহাড়। যার চাপে পিষ্ট হয়ে চিড়েচ্যাপ্টা জিম্বাবুয়ে। আগের দিনের ৫ উইকেটে ৩০৩ রানের পর গতকাল আরও দুই উইকেট হারিয়ে ২১৮ রান যোগ করেছে স্বাগতিকরা। মিরপুরে চা বিরতির পর সাত উইকেটে ৫২২ রান তুলে প্রথম ইনিংস ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ। শেষ বিকেলে অধিনায়ক হ্যামিল্টন মাসাকাদজার (১৪) একমাত্র উইকেট হারিয়ে ২৫ রান তুলেছে জিম্বাবুয়ে। ব্রায়ান চারি ১০ ও ত্রিপানো শূন্য রানে ব্যাট করছেন। ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষে এখনও ৪৯৭ রানে পিছিয়ে সফরকারীরা।

বাংলাদেশের ইনিংসটা আবর্তন করেছে মুশফিকের ব্যাট ঘিরেই। দিন শেষে স্বাগতিকরাও ম্যাচে পেয়েছে চালকের আসন। গতকাল কম্পমান ব্যাটিংয়ের পরও মুশফিকের সঙ্গে সকালটা পাড়ি দিতে পেরেছিলেন মাহমুদউল্লাহ।

সাবধানী ব্যাটিংয়ে এগিয়েছেন, ধৈর্যের প্রতিমূর্তি হয়েই ধরা দিয়েছিলেন মুশফিক। দিনের প্রথম ঘণ্টায় ৩৬ বলে চার রান এবং প্রথম সেশনে মাত্র ৩৪ রান করেছিলেন তিনি। লাঞ্চের পরপরই জার্ভিসকে উইকেট উপহার দিয়ে ফিরেন ৩৬ রান করা অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। জার্ভিসের পঞ্চম শিকার হন আরিফুল (৪)।

তবে একপ্রান্তে অবিচল মুশফিক দেয়াল হয়ে টিকে ছিলেন। অভিভাবকের ন্যায় আগলে রেখে টেনেছেন দলের রানের চাকা। তরুণদের জন্য অনুকরণীয় শৃঙ্খলিত ব্যাটিংয়ে ভাস্বর ছিলেন তিনি। লাঞ্চের পর দেড়শ পূর্ণ করেন ডানহাতি এই ব্যাটসম্যান।

মেহেদী হাসান মিরাজের সঙ্গে অষ্টম উইকেটে গড়েছেন ১৪৪ রানের অবিচ্ছিন্ন রেকর্ড জুটি। যোগ্য সঙ্গ দেওয়া মিরাজ তুলে নেন দ্বিতীয় হাফ সেঞ্চুরি।

চা বিরতির ১৫ মিনিট পরই ৪০৭ বলে অসামান্য ডাবল সেঞ্চুরির মাইলফলক স্পর্শ করেন মুশফিক। বাঁধভাঙা উদযাপনে রাঙিয়েছেন পড়ন্ত বিকেল। অপরাজিত ২১৯ রানের ইনিংসে ১৮টি চার ও ১টি ছক্কা ছিল। ব্যাটিংয়ে মুশফিকের নিয়ন্ত্রণের ছবিটা স্পষ্ট করে দেয় জিম্বাবুয়েকে হতাশায় ডুবিয়ে নেওয়া ৯৯টি সিঙ্গেল। মিরাজ অপরাজিত ৬৮ রান করেন। পরে মুশফিক সাকিবকে টপকানোর পরই ইনিংস ঘোষণা করেন মাহমুদউল্লাহ। জিম্বাবুয়ের জার্ভিস ৭১ রানে পাঁচটি, চাতারা, ত্রিপানো একটি করে উইকেট নেন।

দিনশেষে ড্রেসিংরুমে ফিরে মুঠোফোনে অনেক অভিনন্দন বার্তা পেয়েছেন মুশফিক। আর বার্তা পাঠানোর তালিকায় ছিলেন সাকিব আল হাসানও। চোটের কারণে বাইরে থাকা সাকিবকে ছাড়িয়ে যে গতকালই সাদা পোশাকের দেশের হয়ে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটা নতুন করে লিখেছেন ‘মিস্টার ডিপেন্ডেবল।-ইত্তেফাক