মরা গাছের তাজা ডাল!

রাজশাহী অফিসঃ শুকনো কতগুলো কাঠের কঙ্কাল। লতা নেই, পাতা নেই, ছাল নেই, বাকলও নেই। নেই একটু সবুজ কিংবা এক বিন্দু রসের সম্ভবনা। তবে এই রকম একটি গাছে তাজা একটি ডাল নিয়ে মানুষের মধ্যে কৌতুহল সৃষ্টি হয়েছে।

বিচিত্র ধরনের এই গাছটি রাজশাহীর বাঘা মাজার শরীফের প্রাচীর ঘেঁষে দাঁড়িয়ে রয়েছে। গাছটির বয়স কত হবে তাও কেউ জানেন না। স্থানীয়দের ধারণা, ৩০০ বছরের পুরনো এই গাছ। আশ্চর্য এ আম গাছটি নিয়ে মানুষের কৌতুহলের শেষ নেই। প্রতিদিনই কৌতুহলী মানুষ গাছটি দেখতে আসছেন। কেউ কেউ মনে করছেন, অলৌকিকভাবে বেঁচে আছে গাছটি।

ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, প্রায় ৩০০ বছর আগে হয়রত শাহ্-সুফী আবদুল হামিদ দানিস মন্দ কুতুবুল আফতার (রাঃ) এর মাজার সংলগ্ন সীমানা প্রাচীরের বাইরে এ গাছটি রোপণ করা হয়।
স্থানীয় বয়োজোষ্ঠ তসির উদ্দীন জানান, ৪-৫ বছর আগে থেকে গাছটির পরিবর্তন শুরু হয়। প্রথমে গাছটির মগডাল মরে যায়। এরপর একে-একে তিন পাশের সব ডাল ও গোড়া শুকিয়ে যায়। কেবল একটি ডাল জীবিত থাকে। ডালটি হযরত আব্দুল হামিদ দানিস মন্দ (রাঃ) এর মাজারের উপর ছাঁয়া দিয়ে দাঁড়িয়ে আছে।

গাছটির এ দৃশ্য দেখে স্থানীয় লোকজনসহ মাজারে আসা দর্শনার্থীরা মনে করছেন, এটা সম্পূর্ণ অলৌকিক ঘটনা। মাজার কর্তৃপক্ষও তাই মনে করেন। আর এ কারণেই গাছের শুকনো ডালগুলোও কেটে ফেলা হয় না।