মমতার মন্ত্রীসভায় স্থান পেলেন যারা

94

যুগবার্তা ডেস্কঃ প্রত্যাশা মতোই মমতার মন্ত্রীসভায় বড় দায়িত্ব পেলেন শুভেন্দু অধিকারী, শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় এবং শোভন চট্ট্যোপাধ্যায়। রাজ্যের নতুন পরিবহণমন্ত্রী হচ্ছেন শুভেন্দু অধিকারী। শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় বিদ্যুৎ দফতরের দায়িত্ব পেয়েছেন। তবে মমতার মন্ত্রিসভায় সব থেকে বড় চমক অবশ্যই শোভন চট্টোপাধ্যায়। কলকাতার মেয়র পদে তিনি রয়েছেন। শোভনকে দমকল দফতরের দায়িত্ব দিয়েছেন মমতা।
গতবার এই দফতরের দায়িত্ব ছিল জাভেদ খানের হাতে। এছাড়াও আবাসন এবং পরিবেশ দফতেরর ভারও শোভনের হাতে দিয়েছেন মমতা। অর্থাৎ, মমতার মন্ত্রিসভায় জাভেদ খানের দায়িত্ব কমল। শুধু জাভেদ খানই নয়, লক্ষণীয় ভাবে মমতার মন্ত্রীসভায় দায়িত্ব কমেছে উত্তরবঙ্গের নেতা গৌতম দেবের। গতবার উত্তরবঙ্গের দায়িত্বে থাকা গৌতম দেবের জায়গায় এবারে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী হচ্ছেন কোচবিহার থেকে জিতে আসা রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। গৌতম দেবকে তুলনামূলকভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ পর্যটন দফতরের দায়িত্ব দিয়েছেন মমতা।
গতবারের পর্যটনমন্ত্রী ব্রাত্য বসুকে তথ্যপ্রযুক্তি দফতরের মন্ত্রী করা হয়েছে। বাম আমলে দীর্ঘদিন ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরের দায়িত্বে থাকলেও মমতার মন্ত্রিসভায় তুলনামূলকভাবে কম গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পাচ্ছেন রেজ্জাক মোল্লা। তাঁকে খাদ্যপ্রক্রিয়াকরণ দফতরের মন্ত্রী করা হয়েছে। ভূমি ও ভূমি সংস্কার নিজের হাতেই রেখেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। স্বরাষ্ট্র, স্বাস্থ্য, সংখ্যালঘু উন্নয়নের মতো দফতরগুলি আগের বারের মতো এবারেও নিজের হাতে রেখেছেন মমতা। একনজরে দেখে নেওয়া যাক, মমতার মন্ত্রিসভায় কে কোন দফতর পাচ্ছেন—
পূর্ণমন্ত্রী—মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়- স্বরাষ্ট্র, সংখ্যালঘু, পাহাড় বিষয়ক, স্বাস্থ্য, তথ্য সংস্কৃতি, ভূমি ও ভূমি রাজস্ব, কর্মিবর্গ, ক্ষুদ্র শিল্প। অমিত মিত্র- অর্থ, শিল্প বাণিজ্য, শিল্প পুনর্গঠন। ব্রাত্য বসু- তথ্যপ্রযুক্তি। পার্থ চট্টোপাধ্যায়- স্কুল এবং উচ্চশিক্ষা, পরিষদীয়। সুব্রত মুখোপাধ্যায়- পঞ্চায়েত ও গ্রামোন্নয়ন, জনস্বাস্থ্য কারিগরি। শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়- বিদ্যুৎ। অবনী জোয়ারদার- কারামন্ত্রী।
ফিরহাদ হাকিম- পুর ও নগরোন্নয়ন । অরূপ বিশ্বাস – পূর্ত, ক্রীড়া, যুবকল্যাণ । ইন্দ্রনীল সেন- তথ্য সংস্কৃতি দফতরের রাষ্ট্রমন্ত্রী । জাভেদ খান- ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট, সিভিল ডিফেন্স । আব্দুর রেজ্জাক মোল্লা- খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ, উদ্যান । গৌতম দেব- পর্যটন । জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক- খাদ্য সরবরাহ । শুভেন্দু অধিকারী- পরিবহণ বিনয় বর্মন- বন । শোভন চট্টোপাধ্যায়- দমকল, হাউজিং, পরিবেশ । সাধন পাণ্ডে- ক্রেতা সুরক্ষা, স্বনির্ভর গোষ্ঠী । পুর্ণেন্দু বসু- কৃষি । রবীন্দ্রনাথ ঘোষ- উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতর । অরূপ রায়- কো-অপারেশন । শান্তিরাম মাহাতো- পশ্চিমাঞ্চল। চন্দ্রনাথ সিংহ- মৎস । মলয় ঘটক- শ্রম এবং আইনমন্ত্রী। সৌমেন মহাপাত্র- জলসম্পদ।
রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়- সেচ ও জলপথ । চূড়ামণি মাহাত- অনগ্রসর শ্রেণি উন্নয়ন ।
প্রতিমন্ত্রীঃ
লক্ষ্মীরতন শুক্ল- ক্রীড়া দফতর, যুবকল্যাণ । স্বপন দেবনাথ- ক্ষুদ্র শিল্প, ভূমি এবং ভূমি সংস্কার ।আশীষ বন্দ্যোপাধ্যায়- বায়ো টেকনলজি, পরিকল্পনা ও পরিসংখ্যান । তপন দাশগুপ্ত- কৃষি বিপণন । জেমস কুজুর- আদিবাসী উন্নয়ন ।