ভোলায় ১১৬ মন্ডপে শারদীয় দূর্গোৎসব শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চলছে

ভোলা প্রতিনিধি॥ ভোলায় প্রতিমা রং তুলির কাজ শেষ পর্যায়, এখন চলছে ম-মগুলোতে ডেকরেটর ও প্যান্ডেল সাজানোর শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি। জেলার ৭টি উপজেলায় মোট ১১৬ টি পূজামন্ডপে শারদীয় দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হবে।
এরই মধ্যে মহালয়ার মধ্যদিয়ে মন্ডপগুলোতে শুরু হয়েছে দর্গোৎসবের আনুষ্ঠানিকতা।
এ উপলক্ষে গতকাল সোমরার রাতে চন্ডিপাঠ, দেবী আরোধনা, নৃত্যসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। ভোলা শহরের মিহির লাল সাহা মাঠ পূজা ম-পে এ মহালয়ার অনুষ্ঠিত হয়। এতে সনাতন ধর্মাবলম্বী শতশত নারী পুরুষ অংশগ্রহণ করেন।
জানা গেছে, বিভিন্ন মন্ডব আরতী, নৃত্য, গানসহ মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ষষ্ঠী পূজা থেকে শুরু হয়ে চলবে বিজয়া দশমী পর্যন্ত।
এদিকে, মন্ডপের নিরাপত্তায় বেশিরভাগ মন্ডব সিসি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়েছে। প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা।
মিহির লাল সাহা পূজা মন্ডব কমিটির সদস্য গোপাল সাহা বলেন, ৭০ বছর ধরে আমরা পূজার আয়োজন করছি। এ বছরও আয়োজন চলছে। ৫ দিন ধরে এ অনুষ্ঠান চলবে।
জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি গোরাঙ্গ চন্দ্র দে ও সাধারণ সম্পাদক অসীম সাহা বলেন, জেলার সব মন্ডবে বিপুল উদ্দীপনায় দূর্গোৎসবের আয়োজন চলছে। আমরা পুলিশ প্রশাসনের সঙ্গে কয়েক দফা বৈঠক করেছি, তারা আমাদের পর্যাপ্ত নিরাপত্তা দেওয়ার কথা জানিয়েছে।
ভোলা জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বলেন, শারদীয় দুর্গা পূজা উপলক্ষ্যে জেলার পূজা মন্ডপগুলোতে নেওয়া হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা। পূজা চলাকালীন দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা দিতে পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি সাদা পোশাকে নারী ও পুরুষ পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা বিভিন্ন পূজা মন্ডপসহ গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় বিশেষ নজরদারী রাখবে।
এছাড়াও জেলার গুরুত্বপূর্ণ মন্ডপেও নেওয়া হয়েছে বাড়তি নিরাপত্তা। মন্ডপগুলোতে পুলিশ, র‌্যাব ও আনসার বাহিনীসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর অবস্থানে থাকবে। সিসি ক্যামেরায় আওতায় রাখা হয়েছে পূজা ম-পগুলো। সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রেখে শারদীয় দূর্গাউৎসব পালনে পুলিশের পক্ষ থেকে সকল প্রকার সহযোগীতা করবেন বলেও এই কর্মকর্তা জানান।