Home জাতীয় ভোলার মেঘনায় জেলে ট্রলারে গনডাকাতি, পাঁচ জেলে অপহরণ, মুক্তিপণ দিয়ে বাড়ি ফিরলেন

ভোলার মেঘনায় জেলে ট্রলারে গনডাকাতি, পাঁচ জেলে অপহরণ, মুক্তিপণ দিয়ে বাড়ি ফিরলেন

99

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলার মেঘনা নদীতে বিভিন্ন এলাকায় মাছ শিকারের সময় ৬টি জেলে ট্রলারে গনডাকাতির ঘটনা ঘটেছে। বিভিন্ন মালামাল, মাছ ও জালসহ ৫ জেলেকে অপহরণ করে নিয়ে যায় ডাকাতদল। পরে এক লাখ ঢাকা মুক্তিপণ নিয়ে অপহৃত ৫ জেলেদের ছেড়ে দেয়া হয়।
সোমবার (১২ জুলাই) সকালে উপজেলার শশীগঞ্জ সুইচঘাট এলাকার মৎস্য আড়ৎদার মোঃ আলমগীর দর্জি এ তথ্য নিশ্চিত করেন।
তিনি বলেন, সকালে জেলে ট্রলারে গনডাকাতি ও অপহরণের কথা শুনে চারদিকে খবর নিয়ে বিষয়টি নিশ্চিত হই। পরে আমরা তজুমদ্দিন থানায় জানিয়েছি।
আড়ৎদার মোঃ আলমগীর দর্জি জানান, প্রতিদিনের মতো রোববার (১১ জুলাই) রাত ১১টার দিকে জেলেরা ভোলার তজুমদ্দিন ও মনপুরা উপজেলার মাঝা-মাঝি মেঘনা নদীর বিভিন্ন এলাকায় মাছ শিকার করছিলেন। গভীর রাতে একটি ট্রলার নিয়ে ১২-১৫ জন ডাকাতদল অস্ত্র নিয়ে মনপুরা উপজেলার তিনটি ও তজুমদ্দিন উপজেলার তিনটি ট্রলারের হামলা চালিয়ে জেলেদের মারধর করে মাছ, জাল, সোলার প্যানেল, ব্যাটারি, মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন মালামাল লুট করে নিয়ে যায়। এ সময় ডাকাকদল ৫টি জেলে ট্রলার থেকে মাকসুদ মাঝি (৩৬), শফি উদ্দিন মাঝি (৪০), নকিব মাঝি (৪২), রুবেল মাঝি (৩৫) ও হারুন মাঝিকে (৩৮) চোখ বেঁধে অপহরণ করে নিয়ে যায়।
তিনি আরও বলেন, ডাকাতরা অপহৃত জেলেদের পরিবারের সদস্যদের কাছে ফোন করে ২০ হাজার করে মোট ১ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে। এবং মুক্তিপণের টাকা পাওয়ার পর সোমবার (১২ জুলাই) সকালে বোরহানউদ্দিন উপজেলার মির্জাকালু এলাকায় নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয় ডাকাতদল।
জেলে ও আড়ৎদার সমিতির নেতৃবৃন্দ জানান, ঈদকে সামনে রেখে মেঘনায় কয়েকটি ডাকাতদল ডাকাতির প্র¯Íুতি নিচ্ছেন। যে কারণে জেলে ও মৎস্য আড়ৎদাদের মাঝে আতংক ছড়িয়ে পড়ছে। আগামী ঈদ পর্যন্ত জেলেদের মেঘনায় মাছ ধরা অবাধ করতে প্রশাসনের তৎপরতা বৃদ্ধির আহব্বান জানান তারা।
তজুমদ্দিন থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) এসএম জিয়াউর হক জানান, বিষয়টি আমাদের মৌখিকভাবে জানানো হয়েছে। এখনও লিখিত অভিযোগ করেনি কেউ। তবে আমরা বিষয়টি তদন্ত কওে দেখছি।