ভূমি-জলদস্যুদের কবলে মনপুরার ৫ হাজার পরিবার

যুগবার্তা ডেস্ক: বিচ্ছিন্ন দ্বীপ ভোলা জেলার মনপুরা উপজেলায় ৫ হাজার সংখ্যালঘু পরিবার ভূমিগ্রাসী, সন্ত্রাসী, জলদস্যুদের অত্যাচার নিপীড়নে ৫ হাজার পরিবার জিম্মিদশা নিয়ে জীবনযাপন করছে বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদ।

সোমবার দুপুরে ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটির ক্রাইম রিপোটার্স এ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে বাংলাদেশ মানবাধিকার সমিতি আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের মনপুরা উপজেলার আহ্বায়ক শ্রী ভবেস চন্দ্র মজুমদার।

ভবেস চন্দ্র মজুমদার বলেন, ‘বাংলাদেশের দক্ষিণ অঞ্চলের বঙ্গোপসাগরের ঘোল ঘেঁসে ভোলা জেলার মনপুরা থানায় আমাদের হাজার বছরের বসবাস। যুগের পর যুগ নদী ভাঙনের কবলে পড়ে আমরা একে তো অসহায় অন্যদিকে ভূমিগ্রাসী, সন্ত্রাসী, জলদস্যুদের অত্যাচার নিপীড়নে ৫ হাজার পরিবার জিম্মিদশা নিয়ে জীবনযাপন করছি। সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে আমাদের পাশে এখন আর কেউ নেই। বিচ্ছিন্ন দ্বীপ হওয়ার কারণে প্রশাসনসহ সংশ্লিষ্টরা সময় মতো কেউ উপস্থিত হতে পারে না, আবার অনেক সময় কেউ উপস্থিত হলেও সময় গড়িয়ে অনেক দূরে চলে যায়।’

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, ‘যার উপরে সবচেয়ে বেশি ভরসা করেছিলাম, চোখ বন্ধ করে যাকে ভোট দিয়েছিলাম সেই ১নং মনপুরা ইউপি চেয়ারম্যান জল ও ভূমিদস্যু আলাউদ্দিন এখন জীবন্ত আতঙ্ক হয়ে আমাদের চারপাশে ঘুরঘুর করছে। চিল পাখির মতো আমাদের ধন-সম্পত্তি জবর দখল করে নিচ্ছে।’

এ সময় তিনি চেয়ারম্যান আলাউদ্দিনের অত্যাচার থেকে সংখ্যালঘুদের বাঁচাতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক রানা দাশগুপ্ত, বাংলাদেশ মানবাধিকার সমিতির মহাসচিব মঞ্জুর হোসেন ঈশা, আলো মিছিলের সভাপতি কে এম রকিবুল ইসলাম রিপনসহ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারের সদস্যরা।