ব্যারিষ্টার সাইফের অনন্য মানবিকতার দৃষ্টান্ত…

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি॥ ব্যারিষ্টার সৈয়দ সাইফুল হক সাইফ উদারতা ও মানবিকতায় যেন পিতা সাবেক হুইপ সৈয়দ শহীদুল হক জামালের প্রতিচ্ছবি। বাবার মত মানবিকতার অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন তিনি। সৈয়দ শহীদুল হক জামাল আমৃত্যু দলীয় নেতা-কর্মী ও সাধারণ মানুষের সুখ-দুখের ভাগিদার ছিলেন। যেকোন বিপদে তিনি তাদের পাশে ছায়া হয়ে দাঁড়াতেন। বাংলাদেশ রেডক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান ও প্রভাবশালী রাজনীতিক হওয়ার সুবাদে তিনি জীবদ্দশায় হাজারো জনকে চাকরি দিয়েছেন, অসুস্থজনকে করিয়েছেন সুচিকিৎসা। বাবার সেই সব মানবিক গুনাবলীই কনিষ্ঠ ছেলে ব্যারিষ্টার সাইফের মাঝে শতভাগ বিরাজমান রয়েছে। সম্প্রতি বানারীপাড়া উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও বিশিষ্ট চিত্র শিল্পি মীর সহিদুল ইসলাম তার নিজ কর্মস্থলে এক ভয়াবহ দূর্ঘটনায় হাত বিচ্ছিন্ন প্রায় হয়ে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দাঁড়িয়ে ছিলেন। এ খবর পেয়ে এয়ার অ্যাম্বুলেন্স ভাড়া করে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য দ্রুত ঢাকায় নেওয়ার উদ্যোগ নেন ব্যারিষ্টার সাইফ। সন্ধ্যা গড়িয়ে রাত হওয়ায় এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে নিতে না পেরে তাকে বিকল্প ব্যবস্থায় দ্রুত ঢাকায় নিয়ে প্রায় ১০ লক্ষাধিক টাকা ব্যয় করে বাংলাদেশে সম্ভব সর্বোচ্চ সুচিকিৎসার ব্যবস্থা করে সুস্থ করে তোলেন। স্থানীয় সংসদ সদস্য মো. শাহেআলম ও বানারীপাড়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম ফারুকও মীর সহিদুল ইসলামকে দেখতে হাসপাতালে ছুটে গিয়েছিলেন। আজ ২৪ নভেম্বর বৃহস্পতিবার ¯িœগ্ধ শীতের সাঁঝের বেলায় তাকে দেখতে বানারীপাড়া পৌর শহরের মীর বাড়িতে গিয়েছিলাম। গিয়ে তাকে জায়নামাজে নামাজরত দেখে অবিভূত হই। নামাজ শেষে তিনি আমাকে দেখে আবেগাপ্লুত হয়ে বলেন,মহান আল্লাহর অপার কৃপায় ব্যারিষ্টার সাইফ ও তার পরিবারের অকৃপন মানবিক সহায়তায় এবং সকলের দোয়ায় আমি এখন সুস্থ হওয়ার পথে। কায়মনোবাক্যে প্রার্থণা করে তিনি কৃতজ্ঞচিত্তে আরও বলেন, মহান আল্লাহ যেন সাইফ ও তার পরিবারকে সর্বদা হেফাজতে রাখেন এবং মানব কল্যাণে আমৃত্যু কাজ করে যাওয়ার তওফিক দান করেন।