‘বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগরীতে হরতাল পালন করে সুন্দরবন রক্ষা আন্দোলনে শরীক হোন’

যুগবার্তা ডেস্কঃ তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সমাবেশে নেতৃবৃন্দ সুন্দরবন রক্ষায় বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগরীতে সকাল ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত হরতাল পালন করে সুন্দরবন রক্ষা আন্দোলনে শরীক হতে ঢাকাবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।
সমাবেশে নেতৃবৃন্দ ঢাকাবাসীর উদ্দেশ্যে বলেন, ভয়ভীতি, দ্বিধা রেখে সুন্দরবন রক্ষার এই আন্দোলনে ভ‚মিকা রাখার সুযোগ নিন। আপনার অবস্থান থেকে সংহতি জানান আন্দোলনকে শক্তিশালী করুন। বৃহস্পতিবার বেলা ২টা পর্যন্ত সকল প্রতিষ্ঠান যান্ত্রিক পরিবহন ও ব্যক্তিগত কাজ বন্ধ রাখুন। ২টার পর আপনার পেশাগত, ব্যক্তিগত কাজ শুরু করুন।
আজ বিকেল ৪টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কমিটির সদস্য সচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, জাতীয় কমিটির সংগঠক রুহিন হোসেন প্রিন্স ও আকবর খান। বজলুর রশিদ ফিরোজ, সাইফুল হক, জোনায়েদ সাকী, মোশরেফা মিশু, মোশাররফ হোসেন নান্নু, মানস নন্দী, আজিজুর রহমান, নাসির উদ্দিন নশু, শওকত আহমেদ, মনির উদ্দিন পাপ্পু, জুলফিকার আলী, খান আসাদুজ্জামান মাসুম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ এসময় উপস্থিত ছিলেন।
সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, রামপাল-ওরিয়ন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পসহ শতাধিক বনগ্রাসী-ভ‚মিগ্রাসী প্রকল্প ঘিরে ফেলেছে বিশ্বঐতিহ্য সুন্দরবনকে। দেশ-বিদেশের সচেতন মানুষ, ইউনেস্কোর উদ্বেগ বিরোধীতা অগ্রাহ্য করে মহাজোট সরকার ভারতের এনটিপিসিসহ দেশি-বিদেশি লুটেরাদের স্বার্থে রামপাল প্রকল্পের কাজ এগিয়ে নিচ্ছে। এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে পর্যায়ক্রমে অনিবার্যভাবে সুন্দরবন ধ্বংস হবে। তাই প্রতিরোধ গড়ে তোলার বিকল্প নাই।
নেতৃবৃন্দ বলেন, বিদ্যুৎ উৎপাদনের বহু বিকল্প আছে কিন্তু সুন্দরবনের বিকল্প নাই। তাই সুন্দরবন রক্ষায় দেশপ্রেমিক মানুষকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে রাজপথে নামতে হবে।
সমাবেশ শেষে শত শত মানুষের বিশাল মিছিল-পদযাত্রা প্রেসক্লাব-তোপখানা-পল্টন-দৈনিক বাংলা-মতিঝিল-দিলকুশা-স্টেডিয়াম-বাইতুল মোকাররম হয়ে পল্টন মোড়ে এসে শেষ হয়। পদযাত্রায় নেতৃবৃন্দ প্রচারপত্র বিতরণ করেন ও জনগণের সাথে মতবিনিময় করেন। মানুষ স্বতস্ফ‚র্তভাবে এই আন্দোলনের প্রতি সমর্থন জানান।
হরতালকে সামনে রেখে আগামীকাল ঢাকা নগরীর বিভিন্ন থানায় প্রচার মিছিল এবং সন্ধ্যায় টিএসসির মোড় থেকে মশাল মিছিল অনুষ্ঠিত হবে।