যুগবার্তা ডেস্কঃ মরিতে চাহি না আমি সুন্দর ভুবনে/ মানবের মাঝে আমি বাঁচিবারে চাই। এই সূর্যকরে এই পুষ্পিত কাননে/ জীবন হৃদয় মাঝে যদি স্থান পাই।দ বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের বিখ্যাত পঙক্তিমালা। গভীর জীবনতৃষ্ণায় তিনি তা লিখেছেন। তবে পৃথিবীর মায়া ছেড়ে বাংলা ও বিশ্ব সাহিত্যের এই মনীষী চলে যান বাংলা ১৩৪৮ সনের ২২ শ্রাবণ। আজ শনিবার তার ৭৫তম মৃতু্ দিবস। বাংলা সাহিত্যের এই কীর্তিমানকে দুই বাংলার মানুষ আজ স্মরণ করবে গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতায়।

১৩৪৮ সালের (৬ই আগস্ট ১৯৪১) শ্রাবণের বর্ষণসিক্ত পরিবেশে কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িতে পরলোকগমন করেন তিনি। জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ির শ্যামল আঙিনায় জন্ম নেয়া এই কবি পরে বাংলা সাহিত্যের দিকপাল হয়ে উঠেন। সমৃদ্ধ করে তোলেন সাহিত্যের সবগুলো শাখা। মহাকালের চেনা পথ ধরে প্রতিবছর আসে বাইশে শ্রাবণ।

এই বাইশে শ্রাবণ বিশ্বব্যাপী রবি ভক্তদের কাছে একটি শূন্য হবার দিন। রবীন্দ্র কাব্য সাহিত্যের বিশাল একটি অংশে যে পরমার্থের সন্ধান করেছিলেন সেই পরমার্থের সঙ্গে তিনি লীন হয়েছিলেন এদিন।

মানবতাবাদী ও নোবেল বিজয়ী বিশ্বকবির প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এ উপলক্ষে বাংলা একাডেমি দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।

আজ বিকাল ৪টায় একাডেমির কবি শামসুর রাহমান সেমিনার কক্ষে আহমদ রফিক রচিত রবীন্দ্র জীবন (তৃতীয় খণ্ড) এর প্রকাশনা উৎসবের আয়োজন করা হয়েছে। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেবেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।

দ্বিতীয় দিন আগামীকাল রবিবার বিকাল ৪টায় একাডেমির আবদুল করিম সাহিত্যবিশারদ মিলনায়তনে একক বক্তৃতা, সাংস্কৃতিক পরিবেশনা এবং রবীন্দ্র পুরস্কার-২০১৬ প্রদান করা হবে। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন বাংলা একাডেমির সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। অনুষ্ঠানে রবীন্দ্র বিষয়ক একক বক্তৃতা প্রদান করবেন বিশিষ্ট রবীন্দ্র সংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা।

এ বছর রবীন্দ্র পুরস্কার পাচ্ছেন অধ্যাপক সৈয়দ আকরম হোসেন এবং শিল্পী তপন মাহমুদ।

বিশ্বকবির প্রয়াণ দিবস উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন বিস্তারিত কর্মসূচি পালন করবে। বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বেতারসহ বিভিন্ন স্যাটেলাইট টেলিভিশনও এ উপলক্ষে বিশেষ নাটক এবং অনুষ্ঠানমালা সমপ্রচার করবে।