বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু

99

যুগবার্তা ডেস্কঃ টঙ্গীর তুরাগ নদের তীরে আজ বাদ ফজর আম বয়ানের মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে ৫১তম বিশ্ব ইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব। মুসলিম বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম এ জমায়েতে আজ জুমার জামাতে নামবে মুসল্লিদের ঢল।
এ পর্বে অংশ নিচ্ছেন ঢাকাসহ ১৬ জেলার মুসল্লিরা। ইজতেমায় অংশ নিতে কনকনে শীত ও ঘন কুয়াশা উপেক্ষা করে বৃহস্পতিবারই চলে এসেছেন এসব জেলার মুসল্লিরা। বৃহস্পতিবার রাতে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ট্রেন, বাস, ট্রাক, ট্রলার, লঞ্চসহ বিভিন্ন যানবাহনে মুসল্লিরা ইজতেমা ময়দানে আসছিলেন। এদিন ময়দান ঘুরে দেখা গেছে, কয়েক লাখ মুসল্লি ২৯ খিত্তায় মাঠে অবস্থান নিয়েছেন। প্রথম পর্বে অংশ নেয়া বেশ কিছু বিদেশী মুসল্লি দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেয়ার জন্য বিদেশী কামরায় থেকে গেছেন। নতুন করে যোগ দিয়েছেন অনেক বিদেশী মেহমান। ৯৫ দেশের মুসল্লি এতে অংশ নিচ্ছেন।
ইজতেমা ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তাব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এরই মধ্যে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা ইজতেমা ময়দানসহ আশপাশের এলাকায় অবস্থান নিয়েছেন। পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক (প্রশিক্ষণ) মো. মইনুর রহমান চৌধুরী বৃহস্পতিবার দুপুরে দায়িত্ব পালনকারী সদস্যদের নির্দেশনা দেন। অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি এসএম মাহফুজুল হক নূরুজ্জামান, গাজীপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ। উপস্থিত ছিলেন এএসপি সার্কেল (টঙ্গী) গোলাম সবুর, টঙ্গী থানার ওসি মো. ফিরোজ তালুকদার প্রমুখ। রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হবে দাওয়াতে তাবলিগের এ বার্ষিক মহাসম্মেলন।
মুসল্লিদের অবস্থান : ঢাকা জেলার মুসল্লিরা ১ থেকে ৭ নম্বর খিত্তায় রয়েছেন। ঢাকা-৭ (১নং খিত্তা, খুঁটি-৭৪০১), ঢাকা-৯ (২, ৬৮০১), ঢাকা-১৫ (৩, ৫৩০৭), ঢাকা-১৮ (৪, ৫১১৬), ঢাকা-২১ (৫, ৫১২৪), ঢাকা-১৬ (৬, ৪৫০৭), ঢাকা-২২ (৭, ৪৭২০)। অন্য জেলার মুসল্লিরা রয়েছেন : ঝিনাইদহ (৮নং খিত্তা, খুঁটি-৪১২২), জামালপুর-১ (৯, ৩৩০৭), ফরিদপুর (১০, ৩৩২২), জামালপুর-২ (১১, ২৫০৭), নেত্রকোনা-১ (১২, ১৭০৯), নেত্রকোনা-২ (১৩, ২০১৯), নরসিংদী-১ (১৪, ২৩২৭), নরসিংদী-২ (১৫, ১১২৭), কুমিল্লা-১ (১৬, ৮৩৮), কুড়িগ্রাম (১৭, ৮৪৪), কুমিল্লা-২ (১৮, ১৮৪০), রাজশাহী-১ (১৯, ২৪৪০), রাজশাহী-২ (২০, ২৪৫২), ফেনী (২১, ১৪৫২), ঠাকুরগাঁও (২২, ৬৫০), সুনামগঞ্জ (২৩, ৬৬২), বগুড়া-১ (২৪, ১৪৬২), বগুড়া-২ (২৫, ৭৭৭), খুলনা-১ (২৬, ৭৮৯), খুলনা-২ (২৭, ১৯৯৩), চুয়াডাঙ্গা (২৮, ৮৩০৯) এবং পিরোজপুরের মুসল্লিরা রয়েছেন ২৯নং খিত্তার ৮৭১১নং খুঁটিতে।
ইজতেমা আয়োজক কমিটির অন্যতম সদস্য প্রকৌশলী মো. গিয়াস উদ্দিন বৃহস্পতিবার জানান, দ্বিতীয় পর্বের জন্য ময়দান সম্পূর্ণ প্রস্তুত। এদিকে ইজতেমায় আগত মুসল্লিদের বিনা মূল্যে স্বাস্থ্যসেবা দেয়ার লক্ষ্যে জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয়, টঙ্গী সরকারি হাসপাতালসহ ৫৪টি সরকারি- বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠান ইজতেমা ময়দানে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প পরিচালনা করছে।
মাস্তুরাত ও সাপ্তাহিক তাফাক্কুদ্র কামরা : ময়দানের উত্তর-পশ্চিম কোণে মহিলাদের জন্য মাস্তুরাত কামরা তৈরি করা হয়েছে। এখান থেকে মহিলাদের জামাতবদ্ধ করে দেশ-বিদেশে দাওয়াতি কাজে পাঠানো ও সাপ্তাহিক তালিমের তাফাক্কুদ্রর দিকনির্দেশনা দেয়া হয়ে থাকে।
আগত মুসল্লিদের গাড়ি পার্কিং : মুসল্লিদের সুবিধার্থে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন বিভিন্ন স্থানে গাড়ি পার্কিংয়ের ব্যবস্থা করেছে। গাজীপুরের চান্দনা চৌরাস্তা হয়ে আগত মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন টঙ্গীর কাদেরিয়া টেক্সটাইল মিলস কম্পাউন্ড, মেঘনা টেক্সটাইল মিলের পাশে রাস্তার উভয় পাশ, টঙ্গী সফিউদ্দিন সরকার একাডেমি অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণ ও ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম পাশে টিআইসি মাঠ, গাজীপুরের ভাওয়াল বদরে আলম সরকারি কলেজ মাঠ, চান্দনা চৌরাস্তা হাইস্কুল মাঠ, তেলিপাড়া ট্রাকস্ট্যান্ড এবং নরসিংদী-কালীগঞ্জ হয়ে আগত মুসল্লিদের বহনকারী যানবাহন টঙ্গীর কে-টু ও নেভি সিগারেট কারখানাসংলগ্ন, আশুলিয়া হয়ে আসা গাড়ি প্রত্যাশ মাঠ ও উত্তরা হয়ে আসা গাড়িগুলো মালেকা বানু উচ্চ বিদ্যালয়, নবাব হাবিবউল্লাহ স্কুল, উত্তরা হাইস্কুল মাঠ ও আশপাশের খোলা স্থান ব্যবহার করতে বলা হয়েছে।
কন্ট্রোল রুম : বিশ্ব ইজতেমা ময়দানের সার্বিক নিরাপত্তা ও মুসল্লিদের খেদমতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশন, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), বাংলাদেশ পুলিশ, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স, আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনী, ঢাকা বিদ্যুৎ বিতরণ কেন্দ্রের (ডেসকো) পক্ষ থেকে আলাদা আলাদাভাবে কন্ট্রোল রুম খোলা হয়েছে।