বিশিষ্ট মুক্তিযোদ্ধা শিরিন বানু মিতালিকে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন

যুগবার্তা ডেস্কঃ আজ সকালে আলোচিত নারী মুক্তিযোদ্ধা শিরিন বানু মিতালির কপিনে শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। শুরুতেই এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে রাষ্ট্রীয় গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়। এর পর পরই বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, ছাত্র-গণসংগঠন ও স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের শ্রদ্ধায় ও ভালবাসায় অল্প কিছুক্ষণের মধ্যেই ফুলে ফুলে ছেয়ে যায় কফিন। প্রথমে পরিবারবর্গ শ্রদ্ধা জানায়, এরপর বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন কেন্দ্রীয় সংসদ, সেক্টরস কমান্ডার ফোরাম, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি, বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি পর্যায়ক্রমে শ্রদ্ধা জানান। এছাড়া অন্যান্যের মধ্যে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠী, বাসদ কেন্দ্রীয় কমিটি, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ), বাসদ (মার্কসবাদী), ন্যাপ (মোজাফফর), বাংলাদেশ ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, গার্মেন্টস শ্রমিক ট্রেড ইউনিয়ন কেন্দ্র, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম, নারীগ্রš’ প্রবর্তন, গোবরা মহিলা মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্প, সোভিয়েত অ্যালমনাই এসোসিয়েশন, বাংলাদেশ নারীমুক্তি কেন্দ্র, বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ, পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলন (পবা), আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক), বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ, কেন্দ্রয়ি কচি কাচার মেলা সহ আরো অনেকে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে বক্তাদের বক্তব্যে সাহসী এই আজীবন সংগ্রামী বীরের নানা গুরুত্ববহ ও তাৎপর্যপূর্ণ দিক উঠে আসে।
বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সভাপতি মুজাহিদুল ইসলাম সেলিম বলেন, “যে পরিবার থেকে উঠে এসেছেন তা বিপ্লবী পরিবার। পরিবারের আদর্শকে তিনি সমুন্নত রেখেছেন। মুক্তিযুদ্ধকালে নিজেকে তিনি আরো ছাড়িয়ে গেছেন। তার জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত তিনি মানবমুক্তির কথা বলে গেছেন।”
মহান মুক্তিযুদ্ধের মধ্য দিয়ে অর্জিত বাংলাদেশ সংবিধানের প্রস্তাবনার লেখক ও সুপ্রীম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যরিস্টার আমিরুল ইসলাম বলেন, “তার সমগ্র জীবন অনুসরণীয়, তার জীবনের বীরত্বগাঁথা অনুকরণীয়। তার জীবন সংগ্রাম পাঠ্যপুস্তকে যুক্ত করার আহ্বান জানাই।”
বন্ধু ও সহকর্মী এ্যারামা দত্ত বলেন, “চিরজীবন অসাম্প্রদায়িক ছিলেন এই মানুষটি। এ রকম অসময়ে এ ধরনের মানুষের চলে যাওয়া মেনে নেওয়া যায় না।”
শ্রদ্ধা নিবেদন পর্ব শেষে জানাজার জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে নিয়ে যাওয়া হয়। জানাজা শেষে তাকে কুমিল্লায় দাফন করা হবে।
উক্ত শ্রদ্ধা নিবেদন অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়নের সংগ্রামী সভাপতি, ছাত্র নেতা লাকি আক্তার।