Home জাতীয় বিদায়ী অর্থবছরে মোংলা বন্দরে ৯৭০টি জাহাজ আগমনের রেকর্ড–বন্দর চেয়ারম্যান

বিদায়ী অর্থবছরে মোংলা বন্দরে ৯৭০টি জাহাজ আগমনের রেকর্ড–বন্দর চেয়ারম্যান

58

মোংলা থেকে মোঃ নূর আলমঃ বিদায়ী ২০২০-২১ অর্থ বছরে মোংলা বন্দরে ৯৭০টি জাহাজ আগমনের এবং ৩৪০ কোটি টাকার আয়ের নতুন রেকর্ড সৃষ্টি করেছে। অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে বন্দরের সফলতার এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়েছে। বর্তমানে ৯টি প্রকল্প চলমান আছে। পদ্মা সেতু চালু হলে এ অঞ্চলের কানেক্টিভিটি হিসেবে বন্দর কাজ করবে। বন্দরের সক্ষমতা বৃদ্ধি পেয়েছে। সারাদেশের ব্যবসায়ীরা যাতে বন্দর ব্যবহারে আগ্রহী হয় আমরা তারজন্যে কাজ করছি। লকডাউনের মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে বন্দর পরিচলনা করছি যাতে আমদানী-রপ্তানি সার্বক্ষণিক চালু থাকে। ৪ জুলাই রোববার সকালে বন্দর ভবনের কনফারেন্স রুমে মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ’র আয়োজনে ২০২০-২১ অর্থবছরের অর্জন বিষয়ক প্রেস ব্রিফিংয়ে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা একথা বলেন।
রোববার সকাল ১০টায় প্রেস ব্রিফিংয়ে আরো উপস্থিত ছিলেন মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ’র সদস্য (হারবার এন্ড মেরিন) ক্যাপ্টেন মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ তরফদার, পরিচালক (প্রশাসন) শাহীনুল আলম, প্রধান অর্থ ও হিসাব নিরীক্ষক সিদ্দিক আহমেদ, হারবার মাষ্টার ফখরউদ্দিন, পরিকল্পনা প্রধান জহিরুল হক, প্রধান প্রকৌশলী শেখ শওকত আলী, পরিচালক (ট্রাফিক) মোস্তফা কামাল, সাংবাদিক নেতা মোঃ নূর আলম শেখ, মোংলা প্রেসক্লাবের সভাপতি মনিরুল হায়দার ইকবাল, সাধারণ সম্পাদক আমির হোসেন আমু, বাংলাভিশন’র মোংলা প্রতিনিধি মোঃ জসিম উদ্দিন প্রমূখ। প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয় ২০২০-২১ অর্থবছরে মোট কার্গো হ্যান্ডলিং হয় ১১৯.৪৫ লক্ষ মেট্রিক টন, ৪৩ হাজার ৯৫৯ টিইউজ কন্টেইনার জাহাজে খালাস-বোঝাই এবং ১৪ হাজার ৪৭৪টি গাড়ী অবতরণ করে। সাংবাদিকদের প্রশেśর জবাবে বন্দর চেয়ারম্যান রিয়ার এডমিরাল মোহাম্মদ মুসা বলেন ডিসেম্বরে রামপাল কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র চালু হলে বছরে ৪৫ লক্ষ মেট্রিক টন কয়লা ব্যবহার হবে। এরফলে বছরে ১৩০টি মাদার ভেসেল এবং ৩০০’র উপরে লাইটার জাহাজের আগমন ঘটবে। করোনাকালের কথা বিবেচনায় নিয়ে বন্দর শ্রমিকদের জন্যে শ্রমিক কল্যাণ তহবিল হতে ৩২ লক্ষ টাকা প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর গৃহ নির্মান এবং করোনা তহবিলে মোংলা বন্দরের পক্ষ থেকে ৫ কোটি টাকা প্রদান করা হয়েছে।