বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন ॥ রাশেদ খান মেনন ॥

341

এদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলনের ইতিহাসে ছাত্রসমাজের ভূমিকা অপরিসীম। ইতিহাসের প্রতিটি বাঁকমোড়েই তারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। কিন্তু যে আন্দোলন ছাত্রদের নিজস্ব দাবির ভিত্তিতে গড়ে উঠেছিল এবং দেশের সকল স্তরের ছাত্রদের আন্দোলনে সম্পৃক্ত করেছিল সেটি হলো বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন। সামরিক শাসক আইয়ুবের ‘শরীফ কমিশন’ এর রিপোর্টের বিরুদ্ধে দেশজুড়ে ছাত্রদের এই আন্দোলন গড়ে উঠেছিল।
আইয়ুব খান ক্ষমতায় এসে বিভিন্ন ক্ষেত্রে যে ‘সংস্কার’ এর উদ্যোগ গ্রহণ করেন, শিক্ষা ক্ষেত্র ছিল তার অন্যতম। পশ্চিম পাকিস্তানের শিক্ষা সচিব ও আলীগড় বিশ্ববিদ্যালয়ে তার প্রাক্তন শিক্ষক এসএম শরীফকে চেয়ারম্যান করে পশ্চিম পাকিস্তান থেকে ছয়জন ও পূর্ব পাকিস্তান থেকে চারজন সদস্য নিয়ে এই শিক্ষা কমিশন গঠন করা হয়। ১৯৫৯ সালের জানুয়ারিতে আইয়ুব খান নিজেই এই কমিশনের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। ১৯৫৯ সালের ২৬ আগস্ট ঐ শিক্ষা কমিশন প্রেসিডেন্টকে একটি অন্তবর্তী রিপোর্ট প্রদান করে এবং ১৯৬২ তা মুদ্রিত আকারে প্রকাশ করা হয়। অবশ্য এর পূর্বেই কমিশনের সুপারিশসমূহ বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয়। এর মধ্যে ছিল ডিগ্রি ক্ষেত্রে বছর বছর পরীক্ষা এবং স্নাতক ডিগ্রিকে তিন বছর মেয়াদে সম্প্রসারণ।
আইয়ুবের সামরিক শাসন জারির দু’বছরের মাথাতেই এ সম্পর্কে জনগণের মোহভঙ্গ হয়। দেশে সকল প্রকার রাজনীতির চর্চা নিষিদ্ধ হলেও জনগণের মধ্যে সামরিক শাসন সম্পর্কে ক্ষোভের জন্ম নিতে শুরু। বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানের এই অঞ্চলে এই সামরিক শাসনকে তাদের উপর কেন্দ্রীয় শাসন-শোষণ চাপিয়ে রাখার ষড়যন্ত্র বলে ধারণা জনগণের মধ্যে বিস্তৃতি লাভ করতে শুরু করে। ছাত্ররাও এর বাইরে ছিল না। বরং ছাত্রদের মধ্যেই এই ধারণা ব্যাপকতা পায়। ষাটের শেষভাগে এসে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সমাজ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে তাদের এই ক্ষোভের প্রকাশ ঘটাতে শুরু করেন। একষট্টির একুশে ফেব্রুয়ারি ভাষা শহীদ দিবস উদ্যাপনকে কেন্দ্র করে এই ক্ষোভের সুনির্দিষ্ট প্রকাশ ঘটে। শহীদ দিবসের প্রভাতফেরীতে খুব স্পষ্টভাবেই স্লোগান উচ্চারিত হয়- উড়হি রিঃয গধৎঃরধষ খধ.ি
একুশকে কেন্দ্র করে ছাত্রদের এই বিক্ষোভ সরকারের গোয়েন্দা বিভাগের নজর এড়িয়ে যায় নি। তারা এর সাথে সংশ্লিষ্টদের নাম দিয়ে এক সুদীর্ঘ তালিকা তৈরি করে এবং ওদের যাতে সতর্ক করে দেয়া হয় তার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে ব্যবস্থা নিতে বলে। আসলে একষট্টির একুশকে কেন্দ্র করে ছাত্ররা সামরিক শাসনবিরোধী যে ভূমিকায় অবতীর্ণ হয় তাই বাষট্টির ফেব্রুয়ারিতে সুনির্দিষ্ট রূপ নিয়ে আন্দোলনে পরিণত হয়।
এক্ষেত্রে একটি কথা বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য- ছাত্রদের এই মনোভাবের ক্ষেত্রে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের আঞ্চলিক বৈষম্য প্রধান ছিল। এ কারণে শরীফ কমিশনের রিপোর্টকে তারা পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্রদের শিক্ষার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করার ষড়যন্ত্র হিসেবে ধরে নেয়। পাকিস্তানের দুই অঞ্চলের এই বৈষম্য ছাত্র সমাজ কে এমন তাড়িত করেছিল যে ১৯৬২-এর ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানের মন্ত্রী মনজুর কাদের যখন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদের সামনে বক্তৃতা করতে আসেন তখন ছাত্ররা এ নিয়ে প্রশ্নের উপর প্রশ্ন করে তাকে জর্জরিত করে এবং অবশেষে তাকে অপমানকর অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় ত্যাগ করতে বাধ্য করে। এবং এই সূত্র ধরে বিশ্ববিদ্যালয় মধুর ক্যান্টিনে গোয়েন্দা পেটানোর ঘটনা ঘটলে বিশ^বিদ্যালয়কে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ ঘোষণা করা হয়। আর এর বিরুদ্ধে ছাত্ররা ফুঁসে উঠে সামরিক শাসনের বিধিনিষেধ ভঙ্গ করে রাস্তায় নামলে শুরু হয় সামরিক শাসনের বিরুদ্ধে ছাত্রদের আন্দোলন। এই আন্দোলন আরো সুনির্দিষ্ট রূপ নেয় আইয়ুবের জারি করা সংবিধান ছাত্র সমাজ কর্তৃক প্রত্যাখ্যানের মধ্য দিয়ে। সামরিক শাসনবিরোধী ছাত্রদের এই আন্দোলন কার্যত ছাত্রদের অনুপ্রাণিত করে শিক্ষা ক্ষেত্রে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছিল তার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে। শরীফ কমিশনের রিপোর্টের বিরুদ্ধে আন্দোলনে অবশ্য প্রথম থেকে কোনো কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা ছিল না। ঢাকা কলেজ ও জগন্নাথ কলেজের ছাত্ররা তাদের স্ব স্ব দাবি নিয়ে আন্দোলনের সূত্রপাত করে। অনেকটা বিচ্ছিন্নভাবেই এই আন্দোলন চলছিল। ঢাকা কলেজ ও জগন্নাথ কলেজের বাইরে সারাদেশের মেডিক্যাল স্কুল ও ন্যাশনাল মেডিক্যাল ইনস্টিটিউটের ছাত্ররা তাদের দাবি দাওয়ার ব্যাপারে আন্দোলন করছিল। পলিটেকনিক কলেজের ছাত্রদের মধ্যে এই সময় অস্থিরতা শুরু হয়। ইন্টারমিডিয়েট ও ডিগ্রি ছাত্ররা শরীফ কমিশনের তিন বছর মেয়াদী ডিগ্রি কোর্স ও ইংরেজির অতিরিক্ত বোঝার বিরুদ্ধে নিজ নিজ ক্ষেত্রে আন্দোলন শুরু করে। ১৯৬২ সালের ১০ আগস্ট ইন্টারমিডিয়েট ও ডিগ্রি ছাত্ররা মিলে যৌথ আন্দোলনের কেন্দ্র গড়ে তোলেন। তাদের এই আন্দোলন বিশ্ববিদ্যালয় তথা কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতারা প্রথমে গুরুত্ব না দিলেও ১০ আগস্টের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাইন্স ক্যাফেটরিয়ায় সকল প্রতিষ্ঠানের ছাত্র প্রতিনিধিদের সভার পর ঐ আন্দোলন কেন্দ্রীয় রূপ পরিগ্রহণ করে। ঢাকার প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্র-ছাত্রীরা প্রতিদিন মিছিল মিটিংয়ের মাধ্যমে তাদের দাবির স্বপক্ষে এক অভূতপূর্ব আন্দোলনের সূচনা করে। দ্রুতই সেটা ছড়িয়ে পরে সারাদেশে। সারাদেশে অবিরাম ছাত্র ধর্মঘট শুরু হয় এবং প্রতিদিন ব্যাপক মিছিল মিটিং অনুষ্ঠিত হতে থাকে। একপর্যায়ে স্থির হয় ১০ সেপ্টেম্বর সচিবালয়ের সামনে অবস্থান ধর্মঘট হবে। সরকার ইতোমধ্যে এই আন্দোলনের গভীরতা উপলব্ধি করতে পারে এবং আন্দোলন যাতে আর না এগোয় তার জন্য সচিবালয় অঞ্চলে ১৪৪ ধারা জারি করে। এই পরিস্থিতিতে ঐ কর্মসূচি পরিবর্তন করে ১৭ সেপ্টেম্বর দেশব্যাপী হরতালের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করা হয়। এর মাঝে ১০ সেপ্টেম্বর শহীদ সোহরাওয়ার্দী জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ১৬ সেপ্টেম্বর ঢাকা আসেন। তাকে বিমানবন্দরে ছাত্রদের তরফ থেকে বিশাল সংবর্ধনা দেয়া হয়। পরদিন অবশ্য হরতাল নিয়ে কিছু দ্বিধাগ্রস্ততা তৈরি হলেও সকাল না হতেই ছাত্ররা বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান গ্রহণ করেন।
সকাল ৯টা না বাজতেই বিভিন্ন স্কুল-কলেজ থেকে ছাত্ররা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমতলায় জমায়েত হলে নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই মিছিল শুরু হয়। ঐ মিছিল যখন হাইকোর্ট পার হয়ে আব্দুল গনি রোডে ঢুকছিল, সে সময় পিছন থেকে পুলিশ গুলিববর্ষণ করলে তৎক্ষণাৎ নিহত হন বিআরটিসি’র বাস কন্ডাকটার গোলাম মোস্তফা ও বাবুল। আহত হন ওয়াজিউল্লাহ যিনি পরদিন মৃত্যুবরণ করেন। এই অবস্থায় মিছিল আরো জঙ্গি হয়ে নবাবপুর রোডে পৌঁছালে পুলিশ রথখোলার মোড়ে ব্যারিকেড দেয় যাতে জগন্নাথ কলেজ থেকে আগত মিছিলটি এর সাথে মিলতে না পারে। ছাত্ররা ব্যারিকেড ভেঙ্গে অগ্রসর হলে পুলিশ আবার গুলিবর্ষণ করলে বহুজন আহত হন। পুলিশ ও সেনাবাহিনী সারা বিশ্ববিদ্যালয় ঘিরে ফেললে ছাত্র নেতৃবৃন্দ মেডিক্যাল কলেজে গিয়ে নিহত-আহতদের খোঁজ নেন ও পরবর্তী তিনদিন শোক পালনের কর্মসূচি ঘোষণা করেন। চট্টগ্রাম ও যশোরেও ছাত্রদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। ১৮ সেপ্টেম্বরের শোক মিছিল এক অভূতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা করে।
ইতোমধ্যে অবশ্য রাজনৈতিক নেতারা সরব হন। সোহরাওয়ার্দীসহ দশ নেতা পুলিশের গুলিবর্ষণের নিন্দা করে বিবৃতি দেন। সোহরাওয়ার্দী একই সময় তৎকালীন গর্ভনর গোলাম ফারুকের সাথে দেখা করে পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা করেন। তারই পরামর্শে গর্ভনর তিনদিনের মাথায় শরীফ শিক্ষা কমিশন রিপোর্ট বাস্তবায়ন স্থগিত ঘোষণা করে। ২৪ সেপ্টেম্বর পল্টন ময়দানে ছাত্র-জনসভা অনুষ্ঠিত হয় এবং সরকারকে শরীফ কমিশন বাতিলের দাবিতে চরমপত্র দিয়ে আন্দোলন আপাতত স্থগিত ঘোষণা করা হয়।
বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন সার্বিকভাবেই ছাত্রদের নিজ দাবির আন্দোলন ছিল। কিন্তু সমাজের প্রতি অংশের মানুষ এর দ্বারা আলোড়িত হন। এই আন্দোলনের মধ্য দিয়ে ছাত্র ও জনগণের মধ্যে চেতনার যে স্ফূরণ ঘটে তাই ভবিষ্যতের পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় শাসনের বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনের ভিত রচনা করে।
পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠী শরীফ কমিশনের রিপোর্ট বাস্তবায়ন স্থগিত করলেও বাতিল করে নি। তারা বিচারপতি হামুদুর রহমানকে দিয়ে আরেকটি কমিশন গঠন করে ওই কমিশনের রিভিউ করার দায়িত্ব দেয়। হামুদুর রহমান কমিশন চৌষট্টি সালে তার রিপোর্ট দিলে ছাত্র সমাজ সেটাও প্রত্যাখ্যান করে। ইতোমধ্যে রাজনীতির বৃহত্তর পরিসরে আন্দোলন গড়ে ওঠে। সর্বজনীন ভোটাধিকার ও বৈষম্য নিরসনের দাবিতে ছাত্রাঙ্গনসহ রাজনৈতিক ক্ষেত্রে আন্দোলন গড়ে উঠতে থাকে। এ সবই পরিণতি নেয় ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে। বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন যে শিখা প্রজ্জ্বলিত করেছিল তাই ছড়িয়ে পড়ে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যায় মুক্তিযুদ্ধের পথে।
বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলন ছাত্রদের অনবদ্য আন্দোলন হিসাবে চিরকাল স্মরিত হবে।
লেখক : সভাপতি, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি এবং বাষট্টির শিক্ষা আন্দোলনের অন্যতম ছাত্রনেতা; বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী।