বালুচিস্তান নিয়ে ফের মুখ পুড়ল পাকিস্তানের

ফজলুল বারী, সাংবাদিকঃ স্বাধীনতার দাবিতে আন্দোলনরত বালোচদের মিছিলে ফের পাকিস্তান বিরোধী স্লোগান উঠল। তবে তাতেই শেষ নয় নওয়াজ শরিফের অস্বস্তি। বালোচদের মিছিলে উড়ল ভারতের পতাকা। জয়ধ্বনি উঠল ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নামে।
স্বাধীনতার দাবিতে লড়তে থাকায় বালোচ জনগোষ্ঠীর অনেককেই বালুচিস্তান ছাড়তে বাধ্য করেছে পাক সরকার। এই নির্বাসিত বালোচদের বড় অংশ জার্মানিতে থাকেন। নির্বাসনে থেকেই স্বাধীনতার দাবিতে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা। শনিবার জার্মানির লিপজিগ শহরে এই নির্বাসিত জনগোষ্ঠী একটি মিছিল বার করে। সেই মিছিল থেকেই পাকিস্তানকে তীব্র ধিক্কার দেওয়া হয়েছে। আন্দোলনকারীদের হাতে ছিল বালোচ ন্যাশনাল মুভমেন্টের তৈরি করা স্বাধীন বালুচিস্তানের পতাকা। ছিল ভারতের পতাকাও। ‘আমরা স্বাধীনতা চাই’, ‘বালুচিস্তানকে স্বাধীন কর’, ‘বালুচিস্তান জিন্দাবাদ’ এবং ‘মোদী তুমি এগিয়ে চল’— লিপজিগের বালোচ মিছিলে এই ছিল স্লোগান। স্বাধীনতাপন্থী বালোচদের মিছিলে ভারতের পতাকা ওড়া এবং নরেন্দ্র মোদীর নামে জয়ধ্বনি ওঠা যে ইসলামাবাদের পক্ষে প্রবল অস্বস্তিকর, তা বলাই বাহুল্য। পাকিস্তানের অস্বস্তি আরও বেড়েছে এই মিছিল জার্মানির মাটিতে হওয়ায়। বালুচিস্তানে পাক সেনা কী প্রবল মানবতা বিরোধী অত্যাচার চালাচ্ছে, জার্মানিতে পথে নামা আন্দোলনকারীরা তা স্পষ্ট ভাবে তুলে ধরেছেন আন্তর্জাতিক মহলের সামনে।
হুরান বালোচ নামে এক প্রতিবাদী বললেন, ‘‘আমরা প্রধানমন্ত্রী মোদীকে শ্রদ্ধা করি, আমরা তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। তাঁর আচরণে মানবতা রয়েছে। তিনি পাকিস্তানিদের মতো নন।’’ বালুচিস্তানে স্বাধীনতার দাবি তীব্র হতেই পাকিস্তানের সেনা সেখানে ফের নির্মম দমন-পীড়ন শুরু করেছে বলে হুরান বালোচের অভিযোগ। তিনি জানালেন, যে সব এলাকায় বালোচ জনগোষ্ঠীর বাস, তল্লাশি অভিযানের নামে বেছে বেছে সেই সব এলাকাতেই পাক সেনা হানা দিচ্ছে। তরুণদের তুলে নিয়ে যাচ্ছে ঘর থেকে।
স্বাধীনতা দিবসের ভাষণে নরেন্দ্র মোদী বালুচিস্তান, পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং গিলগিট-বাল্টিস্তানের মানুষের উপর পাকিস্তান সরকারের নির্মম অত্যাচারের প্রসঙ্গ টেনে এনেছিলেন। পীড়িত মানুষের পাশে থাকার বার্তাও দিয়েছিলেন মোদী। তার পরই নির্বাসিত বালোচ নেতা নবাব বুগটি নরেন্দ্র মোদীকে ধন্যবাদ জানান। বালোচ ন্যাশনাল মুভমেন্টের চেয়ারম্যান খলিল বালোচও সে সময় মোদীর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হন। প্রধানমন্ত্রী মোদীর পথ অনুসরণ করে আমেরিকা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নও বালুচিস্তানের পাশে দাঁড়াক, আহ্বান জানিয়েছিলেন খলিল বালোচ। এ বার সেই ইউরোপের মাটিতেই পাকিস্তান বিরোধী বিক্ষোভ শুরু হওয়ায় ইসলামাবাদের অস্বস্তি আরও বাড়তে শুরু করল।-সূত্রঃ ফেইসবুক