বানারীপাড়ায় কিশোরদের সুপথে ফেরাতে ওসি হেলাল’র প্রশংসনীয় পদক্ষেপ

7

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি: বরিশালের বানারীপাড়ায় কিশোর ও তরুণদের যাবতীয় অনৈতিক কাজ থেকে বিরত রাখতে থানার অফিসার ইনচার্জ(ওসি) হেলাল উদ্দিন প্রশংসনীয় পদক্ষেপ নিয়েছেন। এন্ড্রয়েড মুঠোফোনে বিভিন্ন ধরণের গেমস ও পর্ণোগ্রাফি দেখে এবং এলাকায় এলাকায় গ্যাং সৃষ্টি করে স্থানীয় কিশোররা যখন বিপথে যাওয়া শুরু করেছে ঠিক তখনি তাদের সর্বনাশা এ বদঅভ্যাস ও পথ থেকে ফেরাতে তিনি গত কয়েকদিনে বানারীপাড়া পৌর শহর,চাখার ও সদর ইউনিয়নসহ বিভিন্ন এলাকা থেকে দেড় শতাধিক কিশোর ও তরণককে এন্ড্রয়েড মুঠোফোনসহ আটক করে থানায় এনে তাদের সচেতনতামূলক কাউন্সিলিং করেন। এসময় ওসি হেলাল উদ্দিন ইভটিজিং,মাদক, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ,গেমস ও পর্ণোগ্রাফির কুফল সম্পর্কে বিশদ আলোচনার মাধ্যমে তাদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টি করেন। এসময় তিনি অভিভাবকদেরকেও সন্তানদের সুপথে রাখতে তাদের ভূমিকার বিষয়ে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন। পরে মুচলেকা নিয়ে কিশোর ও তরুণদের তাদের অভিভাবকদের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। এ প্রসঙ্গে বানারীপাড়া থানার ওসি মো. হেলাল উদ্দিন বলেন বয়োঃসন্ধিকালে কিশোর ও তরুণদের ভুল পথে চলে যাওয়ার ঝুঁকি থাকে। স্পর্শকাতর এ সময়ে বাবা-মাকে বন্ধুর ভূমিকায় অবর্তীণ হয়ে তাদের সুপথ বাতলে দিতে হয়। নতুন প্রজন্ম যদি অন্ধকার পথে চলে যায় তাহলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলাদেশ বির্নিমাণের স্বপ্ন ভূলুন্ঠিত হবে। তাই কিশোর-তরুণদের সুপথে ফেরাতে তাদের থানায় এনে সচেতনতামূলক কাউন্সিলিং করা হয়েছে। এর ফলে ভবিষ্যতে তারা এন্ড্রয়েড মোবাইল ফোন ব্যবহার না করাসহ অনৈতিক পথে না গিয়ে সুপথে চলবে এ অঙ্গীকার করেছে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পরে তিনি প্রতিটি স্কুল,কলেজ ও মাদ্রাসায় গিয়ে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের সচেতনতামূলক কাউন্সিলিং করবেন বলেও জানান। এছাড়া ক্রীড়াঙ্গনকে সমৃদ্ধ করে কিশোর ও তরুণদের মাঠমূখি করার বিষয়ে ভূমিকা রাখবেন বলেও জানান তিনি। এদিকে কিশোর ও তরুণদের বিবেককে জাগ্রত করে যাবতীয় অনৈতিক কাজ থেকে দূরে রেখে তাদের আদর্শ মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে ওসি মো. হেলাল উদ্দিনের দূরদর্শি এ ইতিবাচক পদক্ষেপকে বানারীপাড়া প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দ ও অভিভাবকসহ এলাকার সচেতনমহল সাধুবাদ জানিয়েছেন।