বাংলা সিনেমা কেন কমছে? কারণ খুঁজছে সরকার

145

যুগবার্তা ডেস্কঃ দর্শক কমে যাওয়ায় বাংলা চলচ্চিত্র দিন দিন কমে যাচ্ছে। একের পর এক বন্ধ হচ্ছে সিনেমা হল। লোকসান এড়াতে মালিকরা হল ভেঙ্গে বিলাশ বহুল ভবন তৈরী করে, চালু করছে মার্কেট। এক সময়ে দাপট নিয়ে চলা চলচ্চিত্রের কেন এমন অবস্থা, এর কারণ অনুসন্ধান করছে সরকার।
তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ সক্রান্ত একটি সভায় এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। এতে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, তথ্য সচিব মরতুজা আহমদসহ সেন্সর বোর্ডের সদস্য, চলিচ্চিত্র পরিচালক ও প্রযোজকরা উপস্থিত ছিলেন।
তথ্যমন্ত্রী তার বক্তব্যে বলেন, এক সময়ের সবচেয়ে শক্তিশালী গণমাধ্যম ছিল চলচ্চিত্র। আপনারা (চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা) সঠিক কাজটি করতে পারলে চলচ্চিত্রি এখনো শক্তিশালী গণমাধ্যম হিসেবে দাড়াঁতে পারবে।
হাসানুল হক ইনু বলেন, নকল, নৃশংসতা, বীভৎসতা, অশ্লীলতা এগুলো চলচ্চিত্রের প্রধান উপজীব্য হতে পারে না। আমি বলব, যৌন ছবি ছলচ্চিত্র নয়, অশ্লীলতা, সন্ত্রাস, বীভৎসতা, নকল- এগুলো সমাজের বিচ্ছিন্ন ঘটনা। এগুলোকে ‍মূল ভিত্তি করে যেন চলচ্চিত্র নির্মাণ না হয়।
সমাজের বিচ্ছিন্ন ঘটনাকে চলচ্চিত্রে মূল বিষয় হিসেবে উপস্থাপন করার প্রবণতা বাদ দিতে হবে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, আমাদের ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনের মতো অনেক সোনার খনি আছে। সেসব জায়গা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে চলচ্চিত্র বানানোর অনেক সুযোগ আছে।
চলচ্চিত্রে যৌনতার ব্যবহার নিয়ে হাসানুল হক ইনু বলেন, যৌনতা নৃশংসতা সন্ত্রাস ইত্যাদি সমাজেরই অংশ। এগুলোকে আমরা অস্বীকার করতে পারব না। কিন্ত, এগুলো সমাজের খুব ক্ষুদ্র একটি অংশ। এই অংশটিকে প্রাধান্য দিয়ে যদি চলচ্চিত্র নির্মাণ হয় তাহলে ভাল অংশটুকু অন্ধকারে থেকে যাবে।
সভায় চলচ্চিত্র প্রযোজক ও পরিচালকরা লোকাল চ্যানেলে সিনেমা প্রদর্শন বন্ধ, বাণিজ্যিক ছবিতে সরকারি সহযোগিতা, পাইরেসি বন্ধে আইন প্রণয়নসহ বিভিন্ন দাবি তুলে ধরেন। তথ্যমন্ত্রী এ সব দাবির বিষয়ে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দেন।