বাংলার লোকসংস্কৃতি আন্তর্জাতিকতায় পৌছেছে–মোস্তাফা জব্বার

যুগবার্তা ডেস্কঃ বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম সভাপতি এবং ডাক, টেলিযোগাযোগ ও
তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী জনাব মোস্তাফা জব্বার বলেছেন, বৃহত্তর ময়মনসিংহের তথা বাংলার লোকসংস্কৃতি জাতীয় গন্ডি ছাড়িয়ে আন্তর্জাতিকতায় পৌছেছে।
এখানকার লোকসংস্কৃতির গৌরবময় ইতিহাস, গবেষণার বিপুল তথ্য সম্ভার জাতীয় ও আন্তর্জাতিক লোকসংস্কৃতি অনুরাগীদের আকর্ষিত করে। তিনি বাংলা লোকসাহিত্যের অমর কীর্তি মৈমনসিংহ গীতিকার প্রকাশ, বিতরণ ও এর অন্ত:স্থ সাহিত্য- সংস্কৃতিকে বিশ^বাসীর কাছে তুলে ধরার জন্য ফোরাম নেতৃবৃন্দকে আরও তৎপর হওয়ার তাগিদ দেন।

মন্ত্রী আজ ঢাকায় খিলক্ষেত বাগানবাড়ীতে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের প্রকল্প আন্তর্জাতিক লোকসংস্কৃতি ইনস্টিটিউট এর ঢাকা কার্যালয় উদ্বোধন অন্ষ্ঠুানে সভাপতির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়,ভারত এর উপাচার্য প্রফেসর ড, সবুজ কলি সেন প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের সাবেক সভাপতি ম হামিদ, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমন্বয় পরিষদের নির্বাহী সভাপতি ইসতিয়াক হোসেন দিদার, বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরাম এর সাধারণ সম্পাদক রাশেদুল হাসান শেলী এবং দ্বীনেশ চন্দ্র সেন এর প্রপৌত্রী অধ্যাপক দেব কল্যান সেন উপস্থিত ছিলেন।

মন্ত্রী বলেন, বাংলা সাহিত্যে মৈমনসিংহ গীতিকার মতো বিশ্বসাহিত্যের অমূল্য সম্পদ বৃহত্তর ময়মনসিংহের মানুষের গর্ব। ড. দীনেশ চন্দ্র সেনের এই অমর কীর্তি দেশ বিদেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ও ১৮ টি ভাষায় অনুদিত হয়েছে। মধ্যযুগের লোকপালা মহুয়া, মলুয়া, বীরঙ্গনা সখিনা কিংবা দেওয়ানা মদিনাসহ অসংখ্য পালাগান নিয়ে মৈমনসিংহ গীতিকা বাংলা লোক সাহিত্যের এক অফুরন্ত ভান্ডার। তিনি বাংলার লোক সাহিত্যকে বিশ^দরবারে ছড়িয়ে দিতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

মন্ত্রী ফিতা কেটে ইনস্টিটিটের স্থানীয় কার্যালয়ের উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে বিশ^ভারতীর উপাচার্য প্রফেসর ড. সবুজ কলি সেন, ভারতের বিশিষ্ট লোকসংস্কৃতি ব্যক্তিত্ব শরিফুজ্জামান লস্কর এবং অধ্যাপক দেব কল্যাণকে বৃহত্তর ময়মনসিংহ সাংস্কৃতিক ফোরামের পক্ষ থেকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।