বশ্বিক উষ্ণতা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে জীবাশ্ব জ্বালানীকে না বলুন

মোংলা অফিসঃ দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে ২০৩০ থেকে ২০৫০ সালের মধ্যে ˆবশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধির হার ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করবে। তাই ˆবশ্বিক উষ্ণতা ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস হলেই জীবাশ্ব জ্বালানীকে না বলুন। সবার জন্য শতভাগ নবায়নযোগ্য জ্বালানী ব্যবহার নিশ্চিত করুন। কয়লা, তেল এবং গ্যাস ভিত্তিক নতুন কোন প্রকল্প গ্রহণ আর না। পাশাপাশি সকলের প্রতি আহবান ক্ষতিকর জীবাশ্ব জ্বালানীতে আর কোন বিনিয়োগ নয়। ১৩ অক্টোবর শনিবার সকালে মোংলার সুন্দরবন সংলগ্ন চিলাবাজারে পশুর রিভার ওয়াটারকিপার এবং ক্লাইমেট চেঞ্জ এ্যাকশন গ্রুপের আয়োজনে জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আন্তঃ রাস্ট্রীয় প্যানেল’র প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে বিশ্বব্যাপী এ্যাকশন ডে কর্মসুচির অংশ হিসেবে মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে বক্তারা এ কথা বলেন।

মানববন্ধন চলাকালে সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ক্লাইমেট চেঞ্জ এ্যাকশন গ্রুপ মোংলার সভাপতি পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ। সমাবেশে বক্তব্য রাখেন উন্নয়ন কর্মী মোঃ নাসির উদ্দিন, ক্লাইমেট চেঞ্জ এ্যাকশন গ্রুপের সাধারণ সম্পাদক সুনীতি রায়, অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক জেম্স শরৎ কর্মকার, পশুর রিভার ওয়াটারকিপার ভলান্টিয়ার মাহারুফ বিল্লাহ, কমলা সরকার প্রমূখ।

সমাবেশে বক্তারা প্রতিটি দেশকে কার্বন নিরপেক্ষ হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন জলবায়ু পরিবর্তনের হাত থেকে পশুর নদী এবং সুন্দরবনকে রক্ষা করতে হবে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির ফলে পশুর নদীর ভাঙ্গনে জলবায়ু উদ্বাস্তুদের পুনর্বাসন, লবণাক্ততার কবল থেকে কৃষি ও পরিবেশ রক্ষা এবং সবার জন্য নিরাপদ পানির দাবী জানান বক্তারা।

সভাপতির বক্তব্যে ক্লাইমেট চেঞ্জ এ্যাকশন গ্রুপ’র সভাপতি পশুর রিভার ওয়াটারকিপার মোঃ নূর আলম শেখ আইপিসিসি’র প্রতিবেদনের কথা উল্লেখ্য করে বলেন কার্বন নিঃসরণের বর্তমান ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৫০ সালের মধ্যে ভয়াবহ বিপর্যয়ের মুখে পড়বে বিশ্ব। তিনি সুন্দরবন বিনাশী কোন প্রকল্প গ্রহণ না করার জন্য সরকারের প্রতি উদাত্ত আহবান জানান।

মানববন্ধন শেষে দুপুরে চিলাবাজারে বেসরকারি উনśয়ন সংস্থা জেজেএস, ক্লাইমেট চেঞ্জ এ্যাকশন গ্রæপ এবং পশুর রিভার ওয়াটারকিপারের আয়োজনে জনশুনানীতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাগেরহাট-৩ এর সংসদ সদস্য বেগম হাবিবুন নাহার।

চিলা ইউপি চেয়ারম্যান গাজী আকবর হোসেনের সভাপতিত্বে জনশুনানীতে বিশেষ অতিথি ছিলেন চাঁদপাই ইউপি চেয়ারম্যান মোল্লা মোঃ তারিকুল ইসলাম। জনশুনানীতে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাবের শিকার পশুর নদীর ভাংগন কবলিত মানুষেরা স্থানীয় সংসদ সদস্যের কাছে নদী এবং সুন্দরবন রক্ষায় বাংলাদেশ সরকারের কাছে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের দাবী তুলে ধরেন।

এছাড়া জাতিসংঘের জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক আন্তঃ রাস্ট্রীয় প্যানেল আইপিসি’র সামপ্রতিক উদ্বেগজনক প্রতিবেদন বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে প্রধান অতিথি বেগম হাবিবুন নাহার এমপি বলেন শেখ হাসিনার সরকার বিশ্ববাসীর কাছে জলবায়ু ন্যায্যতার দাবী তুলে ধরেছে। তিনি স্থানীয় জলবায়ু ঝুঁকিতে থাকা মানুষের দাবী পূরণের আশ্বাস দিয়ে বলেন বর্তমান সরকার চলতি বাজেটে ২০টি দপ্তরের মাধ্যমে প্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকার জলাবায়ু বাজেট অনুমোদন করেছে যা বিশ্বের কাছে রোড মডেল।