বরিশালে বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট

কল্যাণ কুমার চন্দ,বরিশাল থেকেঃ
কঠোর নিরাপত্তা ব্যাবস্থার মধ্য দিয়ে গতকাল মঙ্গলবার সকালে বরিশালের উজিরপুর উপজেলার ভরষাকাঠী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেল্টার ও সৌর বিদ্যুতের সুফল ভোগী হতদরিদ্র সত্তার বেপারীর বাড়ি পরিদর্শন করলেন বিশ্ব ব্যাংকের প্রেসিডেন্ট কিম ইয়ং জিম। বিশ্ব ব্যাংক প্রেসিডেন্ট ওই গ্রামে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নির্মিত ভরসাকাঠী প্রাথমিক বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন সেল্টার এবং ওই এলাকায় গ্রামীন শক্তি ও টি.এম.এস.এস এর পরিচালিত সৌরবিদ্যুৎ এর সুফলভোগীর বাড়ী পরিদর্শন করছেন।
মঙ্গলবার সকাল পৌনে ৯টার দিকে বিশেষ হেলিকপ্টারযোগে বরিশালের রহমতপুর বিমান বন্দরে অবতরণ করেন তিনি। এ সময় তাকে ফুলের তোড়া দিয়ে স্বাগত জানান, জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পীকার অ্যাড. তালুকদার মোঃ ইউনুস, পুলিশ কমিশনার রুহুল আমিন, জেলা প্রশাসক ড. গাজী সাইফুজ্জামানসহ প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার বৃন্দ।
তিনি বেলা ১০টা ১০মিনিটে কঠোর নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে বিদ্যালয় প্রাঙ্গনে প্রবেশ করলে শিক্ষক শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানান। পরে তিনি বিদ্যালয়ের হলরুমে সংক্ষিপ্ত এক আলোচনা সভায় তার বক্তৃতায় বলেন বাংলাদেশিরা কঠোর পরিশ্রমি এবং অতিথি পরায়ন,বাংলাদেশে এসে তিনি অভিভুত। বাংলাদেশের সকল প্রকার আর্থ সামাজিক উন্নয়নে ও সু-শাসন প্রতিষ্ঠায় বিশ্বব্যাংক সবসময় সহযোগীতা করবে। তিনি আরো বলেন প্রাকৃতিক দুর্যোগের সাথে লড়াই করে বেঁচে থাকা বাঙালীদের নিরাপদ আশ্রয় স্থল নির্মানে ও শিক্ষার মান উন্নয়নে বিশ্ব ব্যাংক কাজ করে যাবে,তিনি আরো বলেন দারিদ্রতার সাথে লড়াই করে বাঙালীদের জীবনমান উন্নত করার এ অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে অন্যান্য দেশেও এর সুফল পৌঁছে দেওয়া সম্ভব।
এ সময় আলোচনা সভায় আরো বক্তৃতা করেন জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পীকার বরিশাল ২ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস, বিশ্ব ব্যাংকের প্রকল্প পরিচালক আঃ রশিদ খান,প্রধান শিক্ষিকা ফেরদৌসি আক্তার, ঘূর্নিঝড় মহসেন’র সময় ওই সাইক্লোন সেল্টারে আশ্রয় নেয়া স্থানীয় বাসিন্দা অধ্যাপক এম,এ কাসেম (অবঃ) বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ সাইফূল ইসলাম। এছারা আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ সরকারের সিনিয়র সচিব মো. মেজবাউদ্দিন, সোস্যাল ডেভলপমেন্ট ফাউন্ডেশনের (এসডিএফ) চেয়ারম্যান এমআই চৌধুরী, এসডিএফ প্রকল্প পরিচালক এজেএম শওকত হোসেন, উজিরপুরের উপজেলা চেয়ারম্যান হাফিজুর রহমান ইকবাল ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার ঝুমুর বালা।
পরে তিনি বিদ্যালয়ের শ্রেণী কক্ষ ও সাইক্লোন সেল্টারের প্রশুতি কক্ষ ঘুরে দেখেন এবং ৫ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীদের সাথে কিছু সময় অতিবাহিত করেন ও তাদের লেখা পড়ার খোঁজ খবর নেন এবং বিদ্যালয় ক্যাম্পসে উন্নত প্রজাতির একটি নারিকেলের চারা রোপন করেন ও তার গোড়ায় পানি দেন।
এরপরে বেলা পৌনে ১১ টার দিকে ভরষাকাঠী গ্রামে বিশ্বব্যাংকের অর্থ সহায়তায় পরিচালিত সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্পের সুফল ভোগী হত দরিদ্র সত্তার বেপারীর বাড়ি পরিদর্শন করেন এবং তার পরিবারের লোকজনের সাথে কিছু সময় অতিবাহিত করেন ও তার বিভিন্ন খোঁজ খবর নেন।
এর পূর্বে বরিশাল বিমান বন্দরে নেমে সকাল নয়টায় মি. কিম বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে নতুন জীবন প্রকল্পের মাধ্যমে বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার দক্ষিণ দেহেরগতি গ্রামের গ্রাম সমিতির সমদস্যদের সাথে মতবিনিময় করেন।
এসময় ইয়ং বলেন, যে সমস্ত গরীর নারীদের জীবন পরিবর্তন হয়েছে এই নারীদের সাথে কথা বলতে পেরে আমি খুবই খুশি। আমরা বিশ্ব ব্যাংকের পক্ষ থেকে অর্থায়ন করার আগে এই দরিদ্র নারীরা প্রশিক্ষণ পাননি, তাদের সন্তানরা স্কুলে যেত না। তারা এখান থেকে প্রশিক্ষণ পেয়ে সব্জী চাষ, হাঁস-মুরগী পালন, মাছের চাষ, ক্ষুদ্র ব্যবসার মাধ্যমে ভালো আয় করছেন। তাদের সন্তানেরা পড়ালেখা করছে এবং উন্নতির দিকে যাচ্ছেন। এজন্য নারীদের উন্নয়ন ও ক্ষমতায়নে তারা আরো সহায়তা করবেন। যাতে করে দরিদ্র ও অতিদরিদ্র নারীরা আরো উন্নতি করতে পারেন।