প্রধানমন্ত্রী বরাবর ওয়ার্কার্স পার্টির স্মারকলিপি পেশ

61

যুগবার্তা ডেস্কঃ গ্যাস-বিদ্যুত-সিএনজির মূল্য প্রত্যাহার, জ্বালানি তেলসহ নিত্যপণ্যের দাম হ্রাস এবং শিক্ষার বাণিজ্যিকিকরণ বন্ধের দাবিতে দেশব্যাপী বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কর্মসূচির অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগর কমিটির পক্ষ থেকে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় ঢাকা জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি পেশ করা হয়। স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, সরকার সম্প্রতি গ্যাস-বিদ্যুৎ-সিএনজির মূল্য বৃদ্ধি করেড়ছে। অপরদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের মূল্য ব্যাপকভাবে হ্রাস পাওয়া সত্ত্বেও বাংলাদেশে জ্বালানি তেলের মূল্য হ্রাস করা হয়নি। যার প্রভাব জাতীয় অর্থনীতির ওপর পড়েছে। এ ব্যাপারে ব্যবসায়ীরা তাদের উদ্বেগের কথা জানিয়েছেন। সম্প্রতি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারিদের বেতন-ভাতা দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। বাজারে তার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে। বর্তমানে বাজারে নিত্যপণ্যের দাম এতটাই বৃদ্ধি পেয়েছে যা সাধারণ মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাইরে চলে গেছে। এতে গ্রাম শহরের গরিব-মধ্যবিত্ত স্বল্প আয়ের মানুষের জীবনে অবর্ণনীয় দুঃখ কষ্ট নেমে এসেছে। যা আমাদের কাম্য নয়। এসব কারণে সাধারণ মানুষের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। যে কোন সময় এই ক্ষোভ বিক্ষোভে রূপ নিতে পারে। যা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে লক্ষ্য করা গেছে। শিক্ষা নিয়ে এ ধরনের সিদ্ধান্তের আমরা বিরোধিতা করি। শিক্ষা কোন পণ্য নয়। আমরা শিক্ষার বাণিজ্যিকীকরণের বিরুদ্ধে। শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবা মানুষের মৌলিক অধিকার। এ অধিকার খর্ব করা চলবে না। বর্তমান মহাজোট সরকারের শরীক দল হিসেবে ওয়ার্কার্স পার্টির দায়িত্ব হচ্ছে সরকারকে সঠিক পরামর্শ প্রদান করা। সেই রাজনৈতিক দায়িত্ব হিসেবে সরকারের কতিপয় সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে সৃষ্ট জনঅসন্তোষ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অবহিত করণের জন্য এই স্মারকলিপি। আমরা জানি সরকার পরিচালনা একটি চ্যালেঞ্জিং কাজ। সরকার প্রধান হিসেবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সেই চ্যালেঞ্জিং কাজকে অত্যন্ত দক্ষতা ও যোগ্যতার সাথে পালন করে আসছেন। দুই একজন মন্ত্রীর জনস্বাস্থ্যবিরোধী কার্যকালাপে সরকারের সাফল্য ম্লান হতে পারে না। তাই জনস্বার্থে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীদের কতিপয় সিদ্ধান্ত পুনঃবিবেচনার দাবি রাখে।
স্মারকলিপিতে অবিলম্বে গ্যাস-বিদ্যুৎ-সিএনজি’র বর্ধিতমূল্য প্রত্যাহার, জ্বালানী তেল সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম হ্রাস এবং শিক্ষার বাণিজ্যিকিকরণ বন্ধে সরকারের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানানো হয়।
মাননীয় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে এই স্মারকলিপি প্রদানের আগে বাহাদুরশাহ পার্কে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকা মহানগর কমিটির উদ্যোগে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এই সমাবেশে সভাপতিত্ব করেন ওয়ার্কার্স পার্টি ঢাকা মহানগর কমিটির সভাপতি কমরেড আবুল হোসাইন। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কমরেড মাহমুদুল হাসান মানিক, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড মোস্তফা আলমগীর রতন, ঢাকা মহানগর কমিটির সাধারণ সম্পাদক কমরেড কিশোর রায়, মহানগর কমিটির সদস্য কমরেড মুর্শিদা আখতার নাহার প্রমুখ।