পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্পসহ একনেক সভায় ৪৪হাজার কোটি টাকার ৯ প্রকল্প অনুমোদন

58

যুগবার্তা ডেস্কঃ জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক ) চলতি অর্থবছরের ২৯তম সভায় পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প এবং ঢাকা খুলনা (এন-৮) মহাসড়কের যাত্রাবাড়ি ইন্টারসেকশন থেকে মাওয়া পর্যন্ত এবং পাচ্চর ভাংগা অংশ ধীরগতির যানবাহনের জন্য পৃথক লেনসহ ৪ লেনে উন্নয়ন প্রকল্পসহ ৪৪ হাজার ১শত ৬৭কোটি ১৪ লক্ষ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয় সম্বলিত ৯ টি নতুন ও সংশোধিত প্রকল্প অনুমোদন দেয়া হয়েছে । এর মধ্যে জিওবি ১৯ হাজার ২শত ৬৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা , সংস্থার নিজস্ব তহবিল একশত ৫২ কোটি ২৪ লাখ টাকা এবং প্রকল্প সাহায্য ২৪ হাজার ৭শত কোটি টাকা ।
আজ ঢাকায় এনএসি সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপার্সন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এই অনুমোদন দেয়া হয় । সভায় একনেক সদস্যবৃন্দ,,সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ওপ্রতিমন্ত্রীগণ ,মন্ত্রিপরিষদ সচিব , মুখ্যসচিব এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সি: সচিব ও সচিববৃন্দ উপস্থিত ছিলেন ।
পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সভা শেষে প্রেস ব্রিফিং-এ একনেক সভার বিস্তারিত উল্লেখ করে বলেন,বর্তমান সরকার ক্ষমতাগ্রহণের সময় অর্থাৎ ২০০৮- ২০০৯ অর্থবছরে মোট এডিপির বাস্তবায়ন ছিল প্রায় ২১ হাজার কোটি টাকা । প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গতিশীল নেতৃত্বে ২০১৬সালে আমরা একটি একনেক সভাতেই ৪৪ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেয়ারমত সক্ষমতা অর্জন করেছি । তিনি বলেন , ২০১৮সালে যেদিন পদ্মা সেতু যান চলাচলেন জন্য উন্মোচন করা হবে সেদিন থেকেই পদ্মা সেতুতে রেল চলবে । তিনি বলেন চীনের অর্থায়নে জিটুজি ভিত্তিতে রেল লাইন প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে । প্রকল্পটি বাস্তবায়নে ভুমি অধিগ্রহনসহ প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৩৪ হাজার ৯ শত ৮৮ কোটি ৮৬ লাখ টাকা । এর মধ্যে প্রকল্প সাহায্য ২৪ হাজার ৭শত ৪৯ কোটি টাকা এবং জিওবি ১০ হাজার ২শত ৩ কোটি ৮১ লাখ টাকা ।প্রকল্প বাস্তবায়নে সেনাবাহিনীকে অন্তভূক্ত করা হবে । তিনি জানান প্রধানমন্ত্রী রেল প্রকল্পটি পরবর্তীতে পায়রা সমূদ্র বন্দর পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হবে । তিনি জানান, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টাংগাইলের মত বরিশালেও রেল লাইন স্থাপনের অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছেন।
পরিকল্পনা মন্ত্রী বলেন , একনেক সভায় ৬হাজার দুই শত ৫২ কোটি ২৯ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত ঢাকা খুলনা (এন-৮) মহাসড়কের যাত্রাবাড়ি ইন্টারসেকশন থেকে মাওয়া পর্যন্ত ুএবং পাচ্চর ভাংগা অংশ ধীরগতির যানবাহনের জন্য পৃথক লেনসহ ৪ লেনে উন্নয়ন প্রকল্প, ৯১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা প্রাক্কলিত ব্যয় সম্বলিত জাতীয় মহাসড়ক এন -৭ এর মাগুরা শহর অংশের রামনগর মোর হতে আবালপুর পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ প্রকল্প, ১ হাজার ৮ শত ৯০ কোটি ৮৫ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প ,সিলেট, ৫শত ৩৩ কোটি ১৬ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত উপকূলীয় ও ঘুর্ণিঝড় প্রবণ এলাকায় বহুমুখী ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ (২য় পর্যায় ) প্রকল্প , ৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে প্রাণিরোগ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ প্রকল্প , ৭০ কোটি ৫৬ লাখ টাকা ব্যয়ে উদ্যানতাত্ত্বিক ফসলের গবেষণা জোরদারকরণ এবং চর এলাকায় উদ্যান ও মাঠ ফসলের প্রযুক্তি বিস্তার প্রকল্প , ১শত ৮৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প এবং ৭৩ কোটি ৫৫ লাখ টাকা ব্যয় সম্বলিত বাংলাদেশ বেতারের মহাশক্তি প্রেরণ কেন্দ্রে ১০০০ কিলোওয়াট মধ্যম তরঙ্গ ট্রান্সমিটার প্রকল্প ।
পরকিল্পনা বভিাগরে সচবি তারিক উল ইসলাম , আইএমইডি সচিব ফরিদ উদ্দিন আহমদ ,পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগ এর
সচিব কানিজ ফাতেমা এবং পরকিল্পনা কমশিনে সদস্যগণ প্রেস ব্রিফিং এ উপস্থতি ছলিনে ।