নাশকতার আশংকায় কারাগারগুলোতে রেড অ্যালার্ট

37

যুগবার্তা ডেস্কঃ নাশকতার আশংকায় সারা দেশের কারাগারগুলোতে রেড অ্যালার্ট জারি করা হয়েছে। সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনের ভিত্তিতে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ।

শুক্রবার রাত থেকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, কারা মহাপরিদর্শক (আইজি প্রিজন) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন।

তিনি বলেন, গোয়েন্দা সংস্থার কাছ থেকে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে এমন সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। রেড অ্যালার্ট জারি অবস্থায় কারাগারে থাকা বন্দিদের খাবার, কারাগারে আসা কাগজপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হবে।

কারাগারে দর্শনার্থীরা তল্লাশির পর বন্দিদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। এ ছাড়া কারা ফটকের সামনে বহিরাগত কেউ ঘোরাফেরা করতে পারবেন না।

কারাগারের ভেতরে-বাইরে দায়িত্বরত ব্যক্তিরা যদি দায়িত্বে অবহেলা করেন, তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিবেদনে রয়েছে- আইনশৃংখলা বাহিনীর জঙ্গি দমনে কঠোর ভূমিকায় অবতীর্ণ হওয়ায় জঙ্গিরাও নাশকতার টার্গেট করছে। এরা দেশের বিশিষ্ট নাগরিকদের হত্যার পরিকল্পনা করছে।

বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করতে কারাগারে আক্রমণসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনায় হামলার পরিকল্পনাও করছে চক্রটির সদস্যরা। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে তারা বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক ও অস্ত্র সংগ্রহ করেছে। দলে ভিড়িয়েছে আফগান ফেরত শতাধিক অভিজ্ঞ যোদ্ধা।

প্রকাশ্য রাজনীতিতে প্রায় নিষ্ক্রিয় জামায়াত-শিবিরের নেতারা পেছন থেকে এদের অর্থের জোগান দিচ্ছে। সব ধরনের ষড়যন্ত্র রোধে আইনশৃংখলা বাহিনীকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সম্প্রতি বিশেষ একটি গোয়েন্দা সংস্থা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন দাখিল করে। এতে সরকারকে সর্বোচ্চ সতর্ক থাকার পরামর্শ দেয়া হয়।

গত মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহে দেয়া ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জামায়াত-শিবির ইতিমধ্যে সারা দেশে আত্মগোপনে থাকা সমরযুদ্ধে অভিজ্ঞ আফগান ফেরত শতাধিক যোদ্ধাকে তাদের দলে ভিড়িয়েছে।

এ ছাড়া পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন লস্কর-ই -তৈয়বা, আনসারুল্লাহ বাংলা টিম, তেহরিক তালেবান, কাশ্মীরী মুজাহিদ, হামজা ব্রিগেড ও আরাকানের রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের একটি অংশকেও তাদের দলে নিতে সক্ষম হয়েছে।