নারী মুক্তির লক্ষ্যে আদর্শিক রাজনৈতিক শক্তিকে জোরদার করতে হবে

যুগবার্তা ডেস্কঃশুক্রবার বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি (সিপিবি) ঢাকা কমিটির নারী শাখার সম্মেলনে বক্তারা বলেন, নারী মুক্তির লক্ষ্যে নারী-পুরুষের সমতার বাংলাদেশ গড়ে তোলার জন্য প্রকৃত প্রগতিশীল রাজনৈতিক শক্তিকে আরও জোরদার করে তুলতে হবে। তারা বলেন, সমাজের এক অংশকে পিছিয়ে রেখে অধিকার বঞ্চিত করে নির্যাতন করে সমাজের উন্নয়ন সম্ভব নয়। আজ সকাল ১১টায় সিপিবি নারী শাখার ৬ষ্ঠ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয় জাতীয় প্রেসক্লাবের বিপরীতে তোপখানা রোড চত্বরে।
সম্মেলনের উদ্বোধন করেন সিপিবি ঢাকা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ডা. সাজেদুল হক রুবেল। প্রধান অতিথি ছিলেন সিপিবি’র প্রেসিডিয়াম সদস্য নারী নেত্রী কমরেড লক্ষ্মী চক্রবর্তী।
কমরেড লক্ষ্মী চক্রবর্তী বলেন, নারীকে তার মুক্তির লক্ষ্যে মৌলবাদ জঙ্গিবাদ ও ভোগবাদ সব কিছুর বিরুদ্ধে এককভাবে সমানভাবে লড়াই করতে হয়। নারী মুক্তির লড়াই একটি রাজনৈতিক লড়াই। সমাজে নারীর অবস্থান কি হবে তা আসলে নির্ভর করে রাষ্ট্রের দৃষ্টিভঙ্গির উপর। কাজেই রাষ্ট্র যখন ধর্মীয় মৌলবাদকে প্রশ্রয় দেয় তখন মৌলবাদীদের আস্ফালনে নারী প্রান্তিক জনগোষ্ঠীতে পরিণত হয়। নারীকে তখন লড়াই করতে হয় রাষ্ট্র পরিবর্তনের লক্ষ্যে। আর প্রকৃত প্রগতিশীল রাজনৈতিক শক্তির উত্থানের মধ্যেই নারী মুক্তির পথ উন্মোচিত হবে।
উদ্বোধনী বক্তব্যে ডা. সাজেদুল হক রুবেল পুঁজিবাদী ব্যবস্থায় মুনাফাই যেখানে সবচেয়ে বেশি কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পরিণত হয়, তখন নারী বিনিয়োগযোগ্য পণ্যে পরিণত হয় তার সস্তা শ্রমের কারণে। মজুরি বৈষম্য, সম্পত্তি অধিকার বাতিল, রাষ্ট্রীয় নিপীড়ন সব কিছুই তখন নারীর জন্য স্বাভাবিক হয়ে যায়। তার মানবিক মূল্য তখন অতি নগন্য হয়ে যায়। সুতরাং নারীকে একটি মানবিক সম-অধিকার সম্পন্ন জীবন পেতে হলে সবার আগে তাকে এই সমাজ পরিবর্তনের লড়াইকে অগ্রসর করতে হবে।
নারী শাখার সম্পাদক অ্যাড. মাকসুদা আক্তার লাইলীর সভাপতিত্বে উদ্বোধনী সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন শাখার সহ-সম্পাদক কমরেড লুনা নূর, সদস্য কমরেড রাশেদা কুদ্দুস রানু, কমরেড মিবানী ভট্টাচার্য্য, কমরেড তাহমিনা ইয়াসমিন নীলা, কমরেড শিমুল খান প্রমুখ।
আলোচনা পর্ব শেষে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী এক অসাধারণ প্রেরণাদায়ক প্রতিবাদী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনা করে।