নারী অগ্রগতি, নারীর পথ চলা

88

খুশী কবির : নারীরা অর্থনৈতিকভাবে অনেক এগিয়েছে। কর্মসংস্থানের সুযোগ বেড়েছে। বিভিন্ন সামাজিক সূচকেও তাদের এই অগ্রযাত্রার চিত্র ফুটে উঠছে। নারীর এই অবস্থান সুসংহত করতে হলে, ভালোভাবে এগোতে হলে আরও কাজ করা জরুরি। শুধু সূচকে এগোনো যথেষ্ট নয়, নারীকে আরও এগিয়ে যেতে হবে তার কর্মদক্ষতা দিয়েই। নারীর কর্মসংস্থানের সুযোগ বাড়ছে। তবে যতটুকু সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে তা পর্যাপ্ত নয়। নারীরা কাজ করলেও জীবন নির্বাহের জন্য, চলার মতো মজুরি তারা এখনও পায় না। নাগরিক হিসেবে যে সুযোগ-সুবিধা পাওয়ার কথা তাদের তাও পায় না। সমাজ নারীকে যেভাবে দেখে বা চিন্তা করে তাতে চলার পথে তাদেরকে অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। যার ফলে নারীদের চলাফেরায় অনেক সমস্যা হয়।
নারীর অগ্রযাত্রায় সব চেয়ে বড় প্রতিবন্ধকতা, সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি। দৃষ্টিভঙ্গিগত কারণে নারীরা প্রায় নিরাপত্তা হুমকির মুখে পড়ছে। তারা যদি নিরাপত্তা না পায়, নিরাপদ বোধ না করে সে যতই ভালো থাকুক না কেন, তার কোনো অর্থ থাকবে না।
চলার পথে নারীরা অনেক প্রতিবন্ধকতার মুখোমুখি হন। প্রতিবন্ধকতা দূর করতে হলে বাস্তব পদক্ষেপ নিতে হবে। যেসব আইন রয়েছে তা বাস্তবায়নের অঙ্গিকার আমরা দেখছি না। নারীরা প্রায় যৌন হয়রানির শিকার হয়। নারীকে পণ্য হিসেবেও দেখা হয়Ñ সমাজ এখনো সেই জায়গাটি আটকে আছে। এখান থেকে আমাদের বের হতে হবে। পুরুষতান্ত্রিক মানসিকতাও পরিবর্তন করা জরুরি। একটি উন্নত, সমৃদ্ধ রাষ্ট্রগঠনের প্রয়োজনে, নারীর অগ্রযাত্রা তরান্বিত করার প্রয়াসে সবাইকে মিলিত হয়ে কাজ করা দরকার।-লেখক: মানবাধিকারকর্মী